মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ভাষা ও সংস্কৃতি

বগুড়া জেলার সাহিত্য ও সংস্কৃতি:

সাহিত্য এক অমল চিৎপ্রকর্ষ ভেতর-বাইরে যার সমপর্যায়ী আঘ্রাণ। এক অনিত্য অবস্থা থেকে নিত্যকালের হয়ে ওঠা সাহিত্যের মাধ্যমেই সম্ভব। চিত্তবৃত্তির এমন বহিঃপ্রকাশ অন্য কোনো শিল্পে দেখা যায় না। সাহিত্যের কাজ সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথের উক্তি প্রণিধানযোগ্য-‘অন্তরের জিনিসকে বাহিরের,ভাবের জিনিসকে ভাষায়,নিজের জিনিসকে বিশ্বমানবের ও ক্ষণকালের জিনিসকে চিরকালের করিয়া তোলাই সাহিত্যের কাজ।’যুগে যুগে মানবের হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, বিরাহ-আনন্দ, ব্যথা-বেদনা ও তার অনন্ত আকাঙ্ক্ষাকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য বিরামহীন প্রচেষ্টা চালিয়ে যান কবি-সাহিত্যকগণ। আকার-প্রকারে, ভাবে-ভাষায়, সুরে-ছন্দে মিলেই তার বেঁচে থাকা। সাহিত্যের বিশাল ভুবনের অংশীদারিত্ব নিতে গিয়ে কেউ সফলতার চূড়ায় আরোহণ করেন, কেউ ব্যর্থতার গ্লানি বুকে বয়ে বেড়ান। বাংলা সাহিত্যের হাজার বছরের যে ঐতিহ্যের কথা আমরা বলে থাকি, সেখানেও রয়ে গেছে সেই বহিঃপ্রকাশের ইঙ্গিত।

বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন ‘চর্যাপদ’থেকে শুরু করে বর্তমান কালঅবধি সাহিত্যের বিস্তৃত ভূ-ভাগ জুড়ে প্রতিনিয়তই যে-সৃষ্টির উন্মাদনা লক্ষ্য করে আসছি, তাকে একটি ধারাবাহিক সৃষ্টির ইতিহাস ছাড়া অন্য কোনোভাবে অভিহিত করা যায় না। সাহিত্যের বিভিন্ন শাখা অর্থাৎ গল্প, কবিতা, উপন্যাস, নাটক, প্রবন্ধ এগুলো যে-বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন লেখকের অন্তহীন প্রচেষ্টার এক একটি সাক্ষ্য, এক একটি অনবদ্য সৃষ্টি, তা ভুললে চলে না। একটি জাতির ইতিহাস, ঐতিহ্য, সমাজ অর্থাৎ তার সমগ্রকে জানতে হলে তার সাহিত্যের ইতিহাসকে অনিবার্যভাবে পাঠকের সামনে তুলে ধরতে হয়।

জেলা কালচারাল অফিসার

মোবাইলঃ

০১৭১৪-৬২৩২৩৬

 

জেলা সংগঠক

শিশু একাডেমি, বগুড়া।

ফোনঃ ০৫১-৬৬১২৪

জনাব এ এইচ আযম খান

(সভাপতি) বগুড়া থিয়েটার, বগুড়া।

মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭১৬৫৬২

 

জনাব মো: তৌফিক হাসান ময়না

(সম্পাদক) বগুড়া থিয়েটার, বগুড়া।

মোবাইল : ০১৭১১-৮৬৯৭৪৯

২. বগুড়াঃ ইতিহাসের প্রেক্ষিত:

বগরা খাঁর নামানুসারে বগুড়া জেলা উত্তরবঙ্গের একটি প্রচীন জনপদ। করতোয়া নদীর তীরসংলগ্ন যে-ভূমিটি ছিল হিন্দু আমলের গৌড়েশ্বরের রাজধানী পুন্ড্রবর্ধন, হযরত শাহ্ সুলতান বলখী মাহীসাওয়ারের তীর্থভূমি আজাকের মহাস্থান, একদা অনেক মনীষী, পর্যটক, পীর-ফকির-আউলিয়ার পদপাতে ধন্য হয়ে উঠেছিল এই ছোট্ট জনপদ। ব্যবসা-বাণিজ্যের তীর্থকেন্দ্র হয়ে উঠেছিল বগুড়া। হিন্দু আমল, সুলতানী আমল, নবাবী আমল, বৃটিশ আমল ও পাকিস্তান আমল পেরিয়ে এই বাংলাদেশ পর্যন্ত বগুড়ার ইতিহাস বৈচিত্র্যের ইতিহাস, বহু শাসকের উত্থান-পতনের ইতিহাস, অত্যাচার, শোষণের ইতিহাস, বিদ্রোহ-আন্দোলনের ইতিহাস,বহু রক্ত-ত্যাগ-তিতিক্ষা-যুদ্ধ-স্বাধীনতার ইতিহাস।সব মিলিয়ে বগুড়া জেলার ঐতিহাসিক ভূমিকা অনিবার্যভাবে দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্যের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে দাঁড়ায়। এই বিশাল ইতিহাসের পরিধিতে করতোয়াস্রোত বগুড়ার ভূমিতে জন্মগ্রহণ করেছেন,প্রোথিতযশা অনেক কবি-সাহিত্যিক। তাঁদের রচনাকর্ম একদিকে যেমন একই জেলার গৌরবসময় ভূমিকাকে উজ্জ্বল করেছে,তেমনি এদেশের সাহিত্যাঙ্গনকে করেছে গতিশীল ও সমৃদ্ধ। শুধু তাই নয়,বগুড়ার প্রাচীনকালের কবি-সাহিত্যকদের রচনাবলীর দ্বারা যেমন আমরা আমাদের প্রাচীন ঐতিহ্যকে বারবার ফিরে পাই,তেমনি আধুনিককালের কবি-সাহিত্যকদের রচনাবলী দেশের তথা সাহিত্যের বিশ্ব-ইতিহাস অনুসন্ধানে আমাদের অনুপ্রাণিত করে। অতীত ও বর্তমানের এই মহামিলনের মধ্যে সেতু রচনা করতে আমরা যদি ব্যর্থ হই তাহলে আমাদের সকল ইতিহাস একদিন বিস্মৃতির অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে। ঐতিহ্যের পুনরুদ্ধার প্রয়োজন-একথা শুধু মুখে বললেই হবে না, সঠিক ইতিহাস রচনার মাধ্যমে তাকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে, বিকৃত ইতিহাসের মধ্যে নয়। আমি মনে করি, জেলার ইতিহাস লেখার পাশাপাশি আলাদা গ্রন্থে বগুড়া জেলার কবি-সাহিত্যেকদের জীবন ও তাঁদের রচনাকর্মের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা একান্ত প্রয়োজন, প্রয়োজন আমাদের মূল্যায়নের। আজ বগুড়াবাসীর অনেকেই বগুড়ার কবি-সাহিত্যকদের নাম জানেন না, চেনন না। জানেন না বগুড়ায় জন্মগ্রহণ করে চাকরিসূত্রে বা অন্যান্য কারণে জেলার বাইরে অবস্থান করেও সাহিত্যক্ষেত্রে অনেক সুনাম কুড়িয়েছেন এমন ব্যক্তির নাম এই জানাটা অত্যন্ত জরুরি। অন্তত ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। আমরা আশা করবো,ভবিষ্যতে এ ধরনের দায়িত্ববান কেউ এগিয়ে আসবেন। ভাবতে অবাক লাগে প্রভাস সেনের বগুড়ার ইতিহাস, কে. এম. মেছেরের ‘বগুড়ার ইতিকাহিনী’ আমানউল্লাহ খানের ‘আজকের বগুড়া’ শামসুদ্দীন তরফদারের ‘দুই শতাব্দীর বুকে’ এবং এ ধরনের লেখা বইগুলো শুধু পুনমুদ্রণের অভাবে বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে কে. এম. মেছেরের ‘বগুড়ার ইতিকাহিনী’ বইটি নতুন সংস্করণ প্রকাশ পেয়েছে। প্রভাস সেনের বইটি উডবার্ণ পাবলিক লাইব্রেরির গ্রন্থাগারিক সাহেব নিজের হেফাজতে রেখেছেন হারিয়ে যাবার ভয়ে। প্রভাস সেনের বইটি [প্রায়াত সাংবাদিক দুর্গাদাস মুখার্জীর তত্ত্বাবধানে] দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশ পেলেও ইতিহাস অনুসন্ধিৎসু পাঠ গ্রন্থটির সন্ধান জানেন কি-না আমার জানা নেই। এই যদি হয় বগুড়ার ইতিহাস গ্রন্থের অবস্থা তবে আমরা কীভাবে খুঁজে পাবো আমাদের ঐতিহ্য-ইতিহাস?

বগুড়ার সাহিত্যঃ হিন্দু আমল:

১১৩৪ খৃস্টাব্দ থেকে ১১৮৭ খৃস্টাব্দের মধ্যে বগুড়া দু’জন কবির সাক্ষাৎ পাই। গৌড়ের রাজা মদন পালদেবের সময়ে কবি সন্ধ্যাকার নন্দীর জন্মস্থান উল্লেখ করেছেন মহাস্থান সন্নিকটবর্তী পৌন্ড্রবর্ধনপুর। তাঁর পিতা কায়স্তদের অগ্রণী ছিলেন। পিতার নাম প্রজাপতি নন্দী বলে উল্লেখ করেছেন ঐতিহাসিক রমেশ চন্দ্র মজুমদার। পিতামহের নাম পিনাক নন্দী। সন্ধ্যাকর নন্দীর কাব্যগ্রন্থের নাম ‘রামচরিয়তম’। রামচন্দ্রের সীতাউদ্ধার কাহিনী গ্রন্থটির মূল বিষয়। ঐতিহাসিকগণ তাঁর কাব্যের ভাষাকে মার্জিত ও সুরুচিকর বলে অভিহিত করেছেন। অনিরুদ্ধ ভট্টাচার্যর জন্মস্থান শিবগঞ্জ থানার বিহার গ্রামে। তাঁর কাব্যগ্রন্থের নাম ‘হারলতা’। রমেশ চন্দ্র মজুমদার ‘পিতৃদয়িতা’নামে আরেকখানি গ্রন্থের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি রাজা বল্লাল সেনের সাহিত্যগুরু ছিলেন বলে ঐতিহাসিকগণ মত প্রকাশ করেন।

বগুড়ার সাহিত্যঃ সুলতানী আমল:

১৪০৮ সালের দিকে উদয়নাচার্য ভাদুড়ী নামে একজন গ্রন্থকারের পরিচয় পাওয়া যায়। তাঁর জন্মস্থান কাহালু থানার নিশিন্দ্রা গ্রামে। কারো কারো মতে, নন্দীগ্রাম থানার নিশিন্দারা গ্রামে তাঁর জন্ম। উদয়নাচার্যের গ্রন্থের নাম ‘কুসুমাঞ্জলি’। কাশীতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

বগুড়ার সাহিত্যঃ নবাবী আমল:

এই আমলে বগুড়া জেলায় বেশকিছু কবি-সাহিত্যিকের আবির্ভাব ঘটে। ১৫৭৬ খৃস্টাব্দের সময় থেকে তাঁদের পদচারণা। সেই সময়ে যাঁদের নাম পাই তাঁরা হলেন-গদাধর ভট্টাচার্য, রামনারায়ণ ভট্টাচার্য, নিত্যানন্দ আচার্য, কবি বল্লভ এবং জীবনকৃষ্ণ চৈত্র। গদাধর ভট্টাচার্যের নাম প্রসঙ্গে বগুড়ার দুই ঐতিহাসিক দুই ধরনের নামোল্লেখ করেছেন। প্রভাস সেনের গ্রন্থে তাঁর নাম গঙ্গাধর ভট্টাচার্য কিন্তু কে. এম. মেছেরের গ্রন্থে গদাধর ভট্টাচার্য বলা হয়েছে। বগুড়া জেলার লক্ষীচাপড়া গ্রামে তাঁর জন্ম। তাঁর দুই গ্রন্থের নাম ‘ব্রহ্মনির্ণয়’ ও ‘গদাধরী টীকা’। আদমদীঘি থানার ‘তালসন’ গ্রামে রামনারায়ণ ভট্টাচার্য জন্মগ্রহণ করেন। ‘কৃতভাষ্য’ তাঁর রচনাকর্ম। কবি বল্বভের জন্ম মহাস্থানের কাছে আড়োয়া গ্রামে। পিতার নাম রাজবল্লভ, মাতার নাম বৈষ্ণবী। ‘রসকদম্ব’ তাঁর বিখ্যাত গ্রন্থ। ১৫৯৯ খ্রিস্টাব্দে ফাল্গুনী পূর্ণিমায় তিনি এই কাব্যটি রচনা করেন। তাঁর গ্রন্থটি এত দ্রুত জনপ্রিয়তা লাভ করে যে, কবি বল্লভ ‘রসকদম্ব’ নামে পরিচিত হয়ে ওঠেন। তাঁর গ্রন্থটি শ্রীকৃষ্ণ এবং গোপিকাদের শৃঙ্গার রসে পরিপূর্ণ। কবি নিত্যানন্দ আচার্য অদ্ভুতাচার্য নামে পরিচিত। তিনি আদমদীঘি থানার কুন্ডুগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। মধ্যযুগের কবিদের মধ্যে সবেচেয়ে খ্যাতি অর্জন করেন মহাস্থানের লাহিড়ীপাড়া গ্রামের কবি জীবনকৃষ্ণ মৈত্র। তিনি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে মনসা মঙ্গলের কবি হিসেবে পরিচিত। জীবনকৃষ্ণ মৈত্রের কাব্যের নাম ‘পদ্মপূরাণ’। এতে চাঁদ সওদাগর, মনসা, বেহুলা-লক্ষিন্দরের কাহিনী বর্ণিত হয়েছে। কবি তাঁর বংশপরিচয় দিয়েছেন এভাবে-‘শ্রী বংশীবদন মৈত্র নাম মহাশয়,চৌধুরী অনন্তরায় তাহার তনয়/অনন্ত নন্দন কবি শ্রী মৈত্র জীবন/লাহিড়ীপাড়াতে বাস ‘বরেন্দ্র ব্রাহ্মণ’। তিনি ‘পাগলা জীবন’নামে পরিচিত ছিলেন। নিজস্ব কাব্যপ্রতিভার দ্বারা জীবন মৈত্র সাহিত্যের ইতিহাসে নিজের স্থান করে নিয়েছেন। সে গৌরবের অংশীদার বগুড়াবাসীও।

বগুড়ার সাহিত্যঃ বৃটিশ আমল-মধ্যভাগ:

মূলত এই আমল থেকেই বগুড়ার সাহিতাঙ্গনে কবি-সাহিত্যিকদের পদচারণার ব্যাপকতা বৃদ্ধি পায়। বৃটিশ আমলের মধ্যভাগ এবং শেষভাগ অর্থাৎ ১৯৪৮ খৃস্টাব্দের পরবর্তী সময় পর্যন্ত যে সমস্ত কবি-লেখকরা নিজেদের রচনাকর্মের দ্বারা খ্যাতি অর্জন করেন তাঁদের মধ্যে মুসলিম লেখকদের অবদানও কম ছিল না। বৃটিশ আমলের শেষ পর্যায়ের যাঁরা সাহিত্যক্ষেত্রে প্রসারিত করতে পেরেছিলেন, বাংলাদেশ আমলেও তাঁদের খ্যাতি একেবারে ম্লান হয়নি। বৃটিশআমলের মধ্যপর্যায় থেকে যাঁরা সাহিত্য রচনা শুরু করেন তাঁদের মধ্যে কয়েকজনের নাম পাওয়া যায়। এরা হলেন-হরগোপাল দাস কুন্ডু, প্রাণগোবিন্দ দেব, প্রভাসচন্দ্র সেন, দেববর্শন বিএল, সারদানাথ খাঁ বিএল, মুনশী হামেদ আলী শহরউল্লা, কাজী কলিমুদ্দিন, সৈয়দ বাহার উদ্দিন, কোববাদ হোসেন, ডাঃ কহরউল্লা। হরগোপাল দাস কুন্ডুর জন্মস্থান শেরপুর। তিনি ‘ইতিহাস বগুড়া’নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেন। প্রভাসচন্দ্র সেন মূলত ঐতিহাসিক। বগুড়া জেলার প্রথম ইতিহাস লেখক হিসেবে তিনি সর্বজন পরিচিত। তিনি ‘বগুড়ার ইতিহাস’নামে যে-গ্রন্থটি রচনা করেছেন তা বগুড়ার পূর্বাপর ইতিহাস রচনার ক্ষেত্রে অবদান হিসেবে স্বীকৃত। তিনি কাহালু থানার মহেশপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ‘বরেন্দ্র কাহিনী কৃষ্ণচরিত’ নামেও তাঁর গ্রন্থ আছে। সারদানাথ খাঁ ‘অশোক কাব্য’ নামে অমিত্রাক্ষর ছন্দে একটি কাব্য রচনা করেন। ‘সতী বিমলা’ নামে তিনি একটি উপন্যাসও রচনা করেন। কাহালু থানার নারহট্ট নিবাসী মুনশী হামেদ আলী ‘মুসলিম কর্মবীর চরিতমালা’ ‘মহসীনচরিত’ লিখে খ্যাতি অর্জন করেন। তাঁর গদ্যের ভাষা ছিল অতি উচ্চাঙ্গের। হাজী কলিমুদ্দীন ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট। তিনি ‘লায়লী’ নামে একটি উপন্যাস রচনা করেন। ডাঃ কহরউল্লাহ পেশায় চিলেন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক। তাঁর গ্রামের বাড়ি মহাস্থানের রামশহরে। তিনি ‘মহাস্থান’ নামে যে ঐতিহাসিক উপন্যাস লিখেছেন তাতে মহাস্থানগড়ের ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়া যায়। এছাড়াও এ সময় যাঁদের নাম পাওয়া যায়-শাহ মামুদ খন্দকার’র রচনা-শাহ কলন্দর (১৮৭৯)। নাজের মোহাম্মদ-মোনাই যাত্রা (১৮৭৯)। মোহাম্মদ আরিফ-রঙিন বাহার কাব্য (১৮৮১)। আজমতুল্লাহ খন্দকার-‘ফাতেমার জহুরানাম’ নামে হযরত মুহম্মদ (সাঃ) কন্যা হযরত ফাতিমা (রাঃ)-এর জীবন (১৮৯৩)। খলিল উদ্দিন গাইন-‘ভানুমতীর লড়াই’ (১৮৯৮)। সঙ্গীতেও তাঁর যথেষ্ট খ্যাতি ছিল। দুর্গতিয়া সরকার-সম্ভবত তাঁর নিবাস পূর্ব বগুড়ার সারিয়াকান্দি থানায়। ‘ইমামযাত্রা’ (১৯০২)। মোহাম্মদ রহিম বক্স, ‘শোকার্ণব’ নামে একটি কবিতার বই প্রকাশ করেন। বইটি শেখ আব্দুল লতিফ কর্তৃক বগুড়ার চৌধুরী প্রেসে মুদ্রতি (১৮৯৭ সালের ১২ জুন-এর ভূমিকম্পের উপর পথ কবিতা পৃষ্ঠা-৭০। মূলঃ ৪ আনা। মুদ্রণ সংখ্যাঃ ১০০০, প্রকাশকালঃ ১৮৯৮ সাল।)

বৃটিশ শাসনের মধ্যভাগে আজীমদ্দিন মহাম্মদ চৌধুরী নামে এক যুবক লেখাপড়া ও জীবিকা অন্বেষণের নিমিত্তে পাবনা থেকে বগুড়া এসেছিলেন। তিনি তাঁর জীবনরচিত গ্রন্থে বলেছেন আমি বগুড়া যাওয়ার সময় আমার বয়ক্রম প্রায় ১৭/১৮ বছর। দাড়ি মোছের রেখামাত্র হইয়াছে। এই বয়সের গোড়া হইতে বিদ্যাভ্যাস করা নিতান্ত ঘৃণা ও লজ্জাজনক বিবেচনায় এই দাড়ি গোপনে নিজেই ধারালো ছুড়ি দিয়া চাঁচিয়া, ছিলিয়া বালক প্রায় হইলাম। ছেলেকে সাহায্য করার জন্য বগুড়ার জনৈতিক নাজির সাহেবকে পিতা লিখেছেন-‘বেয়াদব আজীবন কদরেসু শ্রীমানকে আপনার নিকট পাঠাইলাম ইহার প্রতি নেক নজর রাখিবেন ও যাহাতে লেখাপড়া শিক্ষা হয় তাহা করিবেন। পরে আজিমদ্দিন চৌধুরী পুলিশে চাকুরি পেয়েছিলেন। বগুড়া থাকাকালে তিনি ‘জীবনরচিত’ সমাপ্ত করেন ও পরে বরিশাল থেকে এটি প্রকাশ করেন। আত্মজীবনীমূলক রচনার লেখক হিসেবে আজিমদ্দিন মহাম্মদ বাংলা সাহিত্যে প্রথম এবং উনবিংশ শতাব্দীর একমাত্র মুসলমান আত্মজীবনী লেখক। সাদেকুল্লাহ খাঁ জীবনীমূলক কাব্য ‘যুগীকাছের’ (১৮২৭) রচনা করেন।

বাতাসু সরকার বর্তমান জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলালের অধিবাসী। তাঁর দুটি কাব্যগ্রন্থ ‘ছত্ররাজার জঙ্গ’এবং মোনই যাত্রা (১৮৩৮)। রায়হান উদ্দিন ও সাদুল্লা সরকার-‘গোলে আরজান’১৮৭৫ খৃস্টাব্দের দিকে রচনা বলে ধারণা করা হয়। জমশের আলী তালুকদার ‘হোসেন বধ কাব্য’। তিনি ক্ষেতলালের অধিবাসী। কাব্যটি অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত। সৈয়দ আকতার হোসেন-অংশুরেখা।

বৃটিশ আমলের মধ্যভাগে বগুড়ার বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ প্যারীশঙ্কর দাসগুপ্ত প্রায় ১৮টি গ্রন্থ রচনা করেন। সামাজিক উপন্যাস, ধর্মীয় গ্রন্থ এবং চিকিৎসা বিষয়ক গ্রন্থ অন্যতম। তিনি ১৮৫৪ খৃস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৩১ খৃস্টাব্দে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর গ্রন্থগুলোর নাম-আর্য বিধবা, কমলিনী, ফুল ও মুকুল, প্রতাপ সিংহ, যমুনা, রত্নাকর, গার্গী, কর্ণ, লক্ষ্মী, অর্জুন, প্রহলাদ, উমা, গীতা, প্রসাদ ও কুঠির, কৃষ্ণাশ্রম, সংগ্রাম সিংহ, স্ত্রী শিক্ষা, রাধা। চিকিৎসার বই-‘ওলাওঠা’। বগুড়ার দত্তবাড়ী মোড় থেকে নামাজগড় মোড় পর্যন্ত পশ্চিমমুখী রাস্তাটি তাঁর নামানুসারে ডাঃ প্যারীশঙ্কর স্ট্রিট নামে পরিচিত।

মানিক উদ্দিন আহমদ, আদমদীঘি থানার অধিবাসী। তাঁর রচিত গ্রন্থটি-খনার বচন, ইসলাম সুহৃদ, উপদেশ লহরী, বাংলা শব্দকোষ বা ছাত্র সহচর অভিধান, শোকোচ্ছ্বাস বা বিদায়গীতি।

সুজাত আলী সদর থানার তেলিহারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর লেখা শিশুতোষ গ্রন্থ-‘চাঁদের হাট’।

বগুড়ার সাহিত্যঃ বৃটিশ আমলের শেষ ভাগ-ত্রিশ ও চল্লিশ এর দশক:

এই সময় যাদের নাম পাওয়া যায় তাঁরা হলেন-সোনাউল্লাহ সরকার, কাজী বহরউল্লাহ, হাজী জামালউদ্দিন, চাঁদ মহম্মদ, আছমত আলী, সৈয়দ আফতাব উদ্দিন, মওলবী আয়েন উদ্দিন, কবি একেএম রোস্তম আলী কর্ণপুরী, সাদত আলী আখন্দ, কবি কে. এম শমশের আলী, কে. এম মেছের, নাজিরুল ইসলাম মোহাম্মদ সুফিয়ান। কাহালু থানার অধিবাসী কাজী বহরউল্লাহ ‘ফুলের ডালা’ নামক গজলগীতি গ্রন্থ রচনা করেন। মাতৃভাষার প্রতি কবির আকর্ষণের নমুনা-‘সুশিক্ষার শুভ ফল যদি ভোগ কর/যত্ন করে মাতৃভাষা আগে শিক্ষা কর।’ শিকারপুর নিবাসী হাজী জামাল উদ্দীনের ‘বেণুবন’, ছাতিয়ান গ্রামের আয়েন উদ্দিনের ‘পরিণাম’উপন্যাস-এগুলো মোটামুটি সেই সময়ে পাঠক সমাজের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। সাদত আলী আখন্দ শিবগঞ্জ থানার চিঙ্গাসপুরে জন্মগ্রহণ করেন। চাকুরি করতেন পুলিশ বিভাগে, চাকুরি থেকে অবসর গ্রহণের পর ওকালতি পেশা শুরু করেন। ‘তের নম্বরে পাঁচ বছর’ ও ‘অন্যদিন অন্য জীবন’ তাঁর সুলিখিত অভিজ্ঞতামন্ডিত গ্রন্থ। বগুড়ার দুই স্বনামখ্যাত লেখক ভ্রাতৃদ্বয় ড. মুস্তফা নূরউল ইসলাম এবং ‘চরমপত্র’ খ্যাত এম. আর আখতার মুকুলের পিতা ছিলেন সাদত আলী আখন্দ। ১৯৭১ খৃস্টাব্দে অসুস্থতার কারণে মৃত্যুবরণ করেন।

এই সময়ে বগুড়ার যে দু’জন কবি খ্যাতি অর্জন করেন তাঁরা হলেন-কবি রোস্তম আলী কর্ণপুরী এবং কবি কে. এম শমশের আলী। কবি কর্ণপুরী আমৃত্যু সাহিত্যকে ভালোবেসে গেছেন। কোনো সাহিত্যসভায় ডাক পড়লে সুদূর গ্রাম কর্ণপুর থেকে পায়ে হেঁটে চলে আসতেন। সদর থানার কর্ণপুর গ্রামের এই মানুষটি কাব্যভাবনায় নিজেকে উজাড় করে দেন। খেলাফত ও কংগ্রেস আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ‘বিশ্বনবী’, ‘বগুড়ার ফুলমালঞ্চ’, ‘সোহরাব-রুস্তম’সহ অনেক গ্রন্থের রচয়িতা তিনি। ‘সোহরাব-রুস্তম’ কাব্যখানি অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত। তাঁর কবিতার মধ্যে নজরুলের প্রভাব বিদ্যমান। রবীন্দ্রনাথ প্রভাবিত আরেক কবি কে. এম শমশরে আলী সদর থানার মন্ডলধরণ গ্রামে জন্ম। ছাত্রাবস্থা থেকে তিনি কাব্য রচনার প্রয়াস পান। তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘আলিঙ্গন’ ছাত্রজীবনে প্রকাশ পায়। এটি তিনি রবীন্দ্রনাথের কাছে প্রেরণ করেন এবং পরে কবির আশীর্বাদ লাভ করেন। ‘স্বাক্ষর’ সনেট গ্রন্থ এবং অল্পসময়ে তিনি ‘সনেট বিশারদ’ হিসেবে সারাদেশে সুনাম অর্জন করেন। ‘কল্লোল’ আর একটি সন্টে সংকলন। আধুনিক কবিতা, যাকে অনেকে গদ্য-কবিতা বলে আখ্যায়িত করেন, সেই গদ্যকবিতা লেখার প্রচেষ্টার স্বাক্ষর তার আরেকটি গ্রন্থ ‘রমনার কবি’। তিনি কাব্যে এক নিবেদিত প্রাণ কবি ছিলেন। তিনি ১৯৯৯ খৃস্টাব্দের ১৭ এপ্রিল পরলোকগমন করেন। তিনি বাংলা একাডেমী পুরস্কারও লাভ করেন।

১৯৪৭-এ পাকিস্তান নামক একটি রাষ্ট্রের বিতর্কিত অভ্যুদয়ের প্রেক্ষাপটে চল্লিশ দশকের অনেক কবি-লেখক নতুন চেতনায় সাহিত্যচর্চা শুরু করেছিলেন তাঁদেরই একজন নাজিরুল ইসলাম মোহাম্মদ সুফিয়ান। তাঁর রচিত ‘বাংলা সাহিত্যের নতুন ইতিহাস’ সাহিত্যের ইতিহাস রচনার ক্ষেত্রে ভিন্নমতের সন্ধান দিয়েছে। তিনি ড. সুনীতিকুমার, ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতকে গ্রহণ না করে নিজের ধারণাকে প্রতিষ্ঠা করার প্রয়াস পেয়েছেন। তবে তাঁর এই মতকে সাহিত্য বিশেষজ্ঞরা কেউই সমর্থন না দেওয়ায় পুস্তকটি মোটেই পাঠকের কাছে সমাদর পায়নি। আরেকজন লেখক, তবে ঐতিহাসিক হিসেবে তিনি পরিচিত, কাজী মোহাম্মদ মেছের, ‘বগুড়ার ইতিকাহিনী’ তাঁর অবদান। রাজশাহী জেলার ইতিহাস লেখকও তিনি। এছাড়াও ‘দাওয়াত-ই-ইসলাম’ নামেও একটি গ্রন্থ আছে তাঁর। প্রবন্ধগুলো পঞ্চাশ-এর দশকের মধ্যেই প্রকাশিত হয়।

পূর্বজদের ভূমিকাঃ চল্লিশ দশক:

‘কত না সাহিত্য রথী, কবি, শিল্প গুণী জ্ঞানী/বিজয় পতাকা তুলি কত লক্ষ বিদ্যা অভিমানী/ঘঘারিয়া চলিয়াছে-জয়ারথ করে দিগ্বিজয়/দিকে দিকে, দিশে দিশে। বিশ্বজন গায় জয়/জয় প্রতিধ্বনি আসে তার বগুড়ারো নিভৃত প্রান্তরে।’

তাই তো বিম্ময় আমি মান তরুণের স্পর্ধা দেখে, তবে জানি আমি জানি/হোক না গঙ্গার স্রোত খরতর, হোক না পদ্মার/বিশাল বিপুল বক্ষ, তবু যারা করতোয়া মা’র/মাতৃসত্মন্য করে পান- জানে তারা ক্ষুদ্রের মহিমা, দীনের বিত্ত-বৈভব। ফোটায়েছে হেরো শ্যামলিয়া, ভানুমতী মন্ত্র দিয়া গন্ডীমাঝে যে-লীলা ভঙ্গীতে, তেমনি মুখর হোক এ অঞ্চল ও ‘পত্র’ সঙ্গীতে।

১৯৪৯ সালের ১৫ মার্চ বগুড়ার মালতিনগরের এক বাসায় এই ক্ষুদ্র কবিতাটি রচিত হয়েছিল বগুড়া আযিযুল হক কলেজ বার্ষিকীর অধ্যক্ষের আশীর্বাণী হিসেবে। কবিতাটি লিখেছিলেন আযিযুল হক কলেজে সদ্য যোগদানকারী অধ্যক্ষ উপমহাদেশের অন্যতম সুসাহিত্যিক- রম্যলেখক-দার্শনিক চর্চাকাহিনী, দেশে-বিদেশে, শবনম প্রভৃতি গ্রন্থের রচয়িতা ড. সৈয়দ মুজতবা আলী। তিনি কলেজে যোগদান করে অল্প সময়েই লক্ষ্য করেছিলেন বগুড়ার অনেক তরুণের মধ্যে সাহিত্যের প্রাণবহ্নির দীপ্তি। আরও আগে উপমহাদেশের প্রখ্যাত ভাষা পন্ডিত, জ্ঞানতাপস ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ আযিযুল হক কলেজের অধ্যক্ষ থাকাকালীন বগুড়ার সাহিত্যিক পরিবেশ সৃষ্টিতে ‘সাহিত্য আড্ডা’র প্রচলন করেন। মনি সান্যাল নামে এক সাহিত্যমোদীর বাসভবন স্যানাল বাড়ি'তে প্রতি রবিবার বসতো এই সাহিত্য আড্ডা। ড. শহীদুল্লাহ বগুড়া থাকাকালীন পাক্ষিক ‘তকবীর’ নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেন। সৈয়দ মুজতবা আলীর অনুরূপ ‘সাহিত্য বাসর’ বসাতেন প্রতি বৃহস্পতিবার। এ সময়ের একটি চিত্র পাওয়া যায় কবি আতাউর রহমানের স্মৃতি লেখনীতে- ‘বগুড়া কলেজের কয়েকজন তরুণ অধ্যাপকের কাছে আমরা সাহিত্য, সংস্কৃতি ও রাজনীতির পাঠ দিয়েছিলাম। তাঁদের মধ্যে বিশেষভাবে মনে পড়ে অধ্যাপক আবুল খায়ের, অধ্যাপক গোলাম রসুল, অধ্যাপক সৌমিত্র শঙ্কর দাশগুপ্ত, অধ্যাপক প্রতিশ দত্ত প্রমুখকে। অধ্যাপক খায়ের এবং গোলাম রসুল সাহেবের বাসায় সাপ্তাহিক ছুটির দিনে বসতো আমাদের সাহিত্য আড্ডা। এই সাহিত্য আড্ডার নাম ছিল ‘শিল্পায়ন’। এই সভায় গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ এমন কি একাংকিকা ধরনের নাটকও পড়া হতো।

পূর্বজদের ভূমিকা : পঞ্চাশ থেকে আশির মধ্যবর্তী দশক:

পঞ্চাশ দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে ষাটের প্রথমার্ধ সময়ে অধ্যাপক মোহসিন আলী দেওয়ান সম্পাদিত মাসিক ‘অতএব’ পত্রিকাকে ঘিরে একটি সাহিত্য পরিমন্ডল গড়ে ওঠে বগুড়ায়। পঞ্চাশ দশকের অনেক তরুণ লেখক লিখেছেন এই পত্রিকায়। এঁদের মধ্যে আছেন কবি আতাউর রহমান, লুৎফর রহমান সরকার, কমলেশ সেন, খাজা জহুরুল ইসলাম, শাহ আনিসুর রহমান প্রমুখ। ষাটের তরুণদের মধ্যে ফারুক সিদ্দিকী, আনওয়ার আহমদ, বজলুল করিম বাহার সহ অনেকেই লিখেছেন ‘অতএব’ পত্রিকায়। ষাটের মাঝামাঝি ফারুক সিদ্দিকী সম্পাদিত ‘বিপ্রতীক’ কবিতাপত্রকে ঘিরে বেশ কিছু তরুণ তাদের সাহিত্য প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নিয়ে যান। স্বাধীনতার পর ছড়া সংসদ ও কবিতা সংসদ নামে সংগঠনকে ঘিরে সত্তর দশকের অনেক তরুণ নিজেদের সাহিত্য ভূমিতে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন। তবে সংগঠনের চাইতে পত্র-পত্রিকাকে ঘিরেই সাহিত্যের আতপ্ত ভূমিতে তাঁরা পা রাখতে সচেষ্ট হন। ১৯৭৪ -এ এবং ১৯৭৯-তে যথাক্রমে অনুকাল সাহিত্য গোষ্ঠী এবং বগুড়া লেখক গোষ্ঠী ষাট ও সত্তর দশকের লেখকদের একত্রিত করার প্রয়াস চালায়। তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম বগুড়ার সাহিত্যমোদী এবং সুধী সমাজে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছিল। বিশেষ করে ১৯৮১-র ১৫ মার্চে বগুড়া লেখক গোষ্ঠী আয়োজিত দর্শনীর বিনিময়ে কবিতা পাঠের অনুষ্ঠান অভূতপূর্ব সাড়া জাগিয়েছিল। ১৯৮১-তে এবং ১৯৮৫-তে যথাক্রমে কবি শামসুর রহমান এবং কবি আব্দুল মান্নান সৈয়দকে এই সংগঠনের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা জানানো হয়। ১৯৮৬ পর্যমত্ম এর কার্যক্রম অব্যাহত ছিল।

বগুড়ার সাহিত্য : আধুনিককাল-পঞ্চাশ-এর দশক:

পঞ্চাশ-এর দশকে বগুড়ার উল্লেখযোগ্য কবি-লেখকদের আবির্ভাব বগুড়ার সাহিত্যাঙ্গনকে সচল করে তোলে। তাঁরা মননে-মেধায় ছিলেন তাঁদের পূর্বজদের চেয়ে অগ্রগামী। তাঁদের অর্জিত শিক্ষাকে যেমন তারা সামাজিক সত্মরে আত্মপ্রতিষ্ঠার কাজে লাগিয়েছিলেন, তেমনি সাহিত্যের ক্ষেত্রকে উন্নত চিমত্মার আধার করে তুলেছিলেন। বাংলা সাহিত্যের আধুনিক ধারায় তাঁরা স্নাত হয়েছিলেন। পঞ্চাশ-এর দশকে এদের সাহিত্য নতুন করে গতি পেতে শুরু করে। সাতচল্লিশে পাকিসত্মান সৃষ্টি, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, চুয়ান্নর যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠন, আটান্নতে সামরিক শাসন-রাজনীতির প্রেক্ষাপটে ছিল বিস্তৃত। সামাজিক সত্মরে চলেছে নানা পরিবর্তন। সাহিত্যচর্চা যাঁরা করেছেন তাঁদের রচনায় আছে সমাজ, মানুষ, রাজনীতি, সামাজিক প্রেক্ষাপট। এই সময় বগুড়ায় যাঁরা সাহিত্যচর্চা করেছেন তাঁরাও এসব দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন। তাঁরা কবিতায়, গল্পে, নাটক ও অন্যান্য লেখায় বিষয়ের বিস্তৃতি ঘটাতে পেরেছেন। বগুড়ায় এই সময় যাঁদের পাচ্ছি তাঁরা হলেন- অধ্যক্ষ খোদেজা খাতুন, রোমেনা আফাজ, আতাউর রহমান, লুৎফর রহমান সরকার, তাজমিলুর রহমান, এম শামসুল হক, মীর্জা আমজাদ হোসেন, মুহম্মদ আব্দুল মতীন, সাইফুল বারী, ড. মুসত্মাফা নূরউল ইসলাম, খোন্দকার আজিজুল হক, এম আর আখতার মুকুল, শামস রশীদ, আনোয়ারা রহমান এ্যানা, টিপু সুলতান, মুহম্মদ নুরুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম মন্ডল, শেফালী রহমান, ডাঃ আব্দুল করিম, একে মজিবর রহমান, সৈয়দ ওমর আলী চৌধুরী, মতিয়র রহমান কবিরাজ, বিলোরা চৌধুরী, সৈয়দ আফতাব হোসেন, অধ্যাপক মোহসীন আলী দেওয়ান, শাহ আনিসুর রহমান, জাহাঙ্গীর চৌধুরী, মাফরুহা চৌধুরী, সাজেদুর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক, আসাফ-উদ-দৌলা রেজা, ডাঃ নীন গোপাল দেবদাস, হাসনা আকরাম, গাজীউল হক, জগলুল হায়দার আফরিফ, মমতাজুর রহমান, আব্দুল মজিদ, আতাউল হক, সুলতানা রহমান, শামসুদ্দীন তরফদার, আব্দুল মজিদ ফকির, প্রসাদ বিশ্বাস, আমজাদ হোসেন, মুহম্মদ ফজলুল হক, আবেদ আলী আহমদ প্রমুখ।

প্রতিকৃতির কিছু তথ্যায়ন:

অধ্যক্ষা খোদেজা খাতুন ১৯১৭ খৃস্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কবি কেএম শমসের আলীর ছোট ভগ্নি। তিনি এই জেলার প্রথম মুসলিম মহিলা এম, এ। তাঁর রচিত গ্রন্থাবলী- বেদনার এই বালুচরে (কবিতাগ্রন্থ), গল্পগ্রন্থ- সাগরিকা, রূপকথার রাজ্যে, শেষ প্রহরের আলো, একটি সুর একটি গান। প্রবন্ধ- বগুড়ার লোকসাহিত্য, সাহিত্যভাবনা, আমার দীর্ঘতম ভ্রমণ, রম্যরচনা, অরণ্যমঞ্জরী। এছাড়াও ‘শতপুষ্পা’ নামে ৩ খন্ডে কবিতা, গল্প ও প্রবন্ধ সংকলন সম্পাদনা করেন। ঢাকা ইডেন কলেজের অধ্যক্ষ পদ থেকে অবসর নেওয়ার পর ১৯৯০ খৃষ্টাব্দে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

রোমেনা আফাজের জন্ম ১৯২৬ খৃষ্টাব্দে। মূরত ‘দস্যু বনহুর’ সিরিজ কাহিনী লিখে তিনি খ্যাতি অর্জন করেন। কিন্তু উপন্যাস রচনাতেও তাঁর ছিল সমান দক্ষতা। ‘বনহুর’ সিরিজের মোট সংখ্যা ১৩২। ‘দস্যুরাণী’ সিরিজ ১২টি। উপন্যাসের সংখ্যা ৬০। ‘কাগজের নৌকা’ সহ প্রায় ছয়টি উপন্যাস চলচ্চিত্রায়িত হয়েছে। ‘মান্দীগড়ের বাড়ি’ নামে একটি কিশোর উপন্যাসও তিনি লিখেছেন। সাহিত্যে নিবেদিতপ্রাণ রোমেনা আফাজ ২০০৩ সালে লোকামত্মরিত হন।

তাজমিলুর রহমানের জন্ম ১৯২৫ সালে। তিনি নাট্যকার হিসেবে সুপরিচিত। তাঁর রচিত কয়েকটি নাটকের মধ্যে অন্যতম- কলির জিন, ভাই, রূপচাঁন, সুবেহ উম্মিদ, কারিগর, অনেক আঁধার পেরিয়ে, টোপ যেমন খুশি সাজো। কিশোরদের জন্য লিখেছেন উপন্যাস- জুলফিকারের অভিযান, সুন্দরবনে জুলফিকার, ভূতের কবলে জুলফিকার। রম্যরচনা- অমৎসর, লঘুগুরু। তাঁর রচিত প্রবন্ধ গ্রন্থের নাম- প্রবন্ধ সংগ্রহ।

আতাউর রহমান, জন্ম ১৯২৫। বর্তমানে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুরে। বাংলাদেশে পঞ্চাশ-এর দশকে ত্রিশ-এর দশক লালিত আধুনিক কাব্যভাবনা বগুড়ার কবি আতাউর রহমানের কবিতায় ব্যাপ্তি লাভ করে। তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘দুই ঋতু’ প্রকাশিত হয় ১৯৬০ খৃষ্টাব্দে। ‘একদিন প্রতিদিন’, ‘নিষাদ নগরে আছি’, ‘ভালবাসা চিরশত্রু’, ‘ইদানিং রঙ্গমঞ্চ’, ‘ভালবাসা এবং তারপর’ ও ‘সারাটা জীবন ধরে’। তিনি নজরুল বিশেষজ্ঞ’ হিসেবে সুপরিচিত। তাঁর গবেষণাগ্রন্থ- আধুনিক বাংলা সাহিত্যের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস, নজরুল কাব্য সমীক্ষা, নজরুল জীবনে প্রেম ও বিবাহ উল্লেখযোগ্য। ১৯৭০ খৃষ্টাব্দে তিনি বাংলা একাডেমী পুরষ্কার পান। তিনি ১৯৯৯ খৃষ্টাব্দের ৩০ জুন মৃত্যুবরণ করেন।

শিবগঞ্জ থানার লেখক আতাউর হক। জন্ম ১৯২৯। তাঁর রচিত গ্রন্থসমূহ ‘অঙ্গীকার, মহানবীর অমর বাণী, রক্তশিখা, মুসলিম দর্শন ইত্যাদি।

শামসুদ্দীন তরফদার। তাঁর জন্ম ১৯১৪ খৃষ্টাব্দে সারিয়াকান্দি থানার নারচী গ্রাম। তিনি ‘দুই শতাব্দীর বুকে’ গ্রন্থখানিতে বগুড়ার ইতিহাস ও জেলার জ্ঞানীগুণী ব্যক্তিদের পরিচিতি তুলে ধরেছেন। ‘পল্লীচিত্র’ নামে একটি নাটকও লিখেছেন।

শামস্ রশীদ অজস্র উপন্যাস রচনা করেছেন। জন্ম ১৯২০ খৃষ্টাব্দে। উপল উপকূলে (২য় খন্ড), নীলাঞ্জনা, প্রাণ বসমত্ম, হৃদয় উপবনেসহ প্রায় ১৫টি উপন্যাস এবং শিশুতোষ গ্রন্থ ‘সমুদ্র নাবিক’ রচনা করেন। তিনি পরবর্তীতে বাংলা একাডেমী পুরষ্কার লাভ করেন।

ড. মমতাজুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক। ইতিহাস বিষয়ক বেশক’টি গ্রন্থ প্রণেতা। ১৯৭৭ খৃষ্টাব্দে বাংলা একাডেমী পুরষ্কার লভ করেন। তাঁর জন্ম ১৯২৮ সালে সদরের মেঘাগাছা গ্রামে।

মীর্জা আমজাদ হোসেন সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত অর্জন করলেও লেখক হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন। শিশুতোষ রচনা- কচিদের মহানবী, কচিদের আবু বকর, কচিদের ওমর ও আলী, হিরা মানিকের দেশ, বড় হওয়ার গোপন কথা, মরু ভাস্কর, পাহাড়ী দেশে স্বপন কুমার, অবমত্মীপুরে স্বপন কুমার ইত্যাদি। রঙের বাজারে পঁয়তাল্লিশ বছর, আত্মজীবনীমূলক রচনা লেখার সময় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

আনোয়ারা রহমান এ্যানা ১৯৩৮ খৃষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। কবি আতাউর রহমানের স্ত্রী, তাঁর রচিত উপন্যাস- আমার বধূয়া, গল্পগ্রন্থ- অমত্মলীন, গল্পমঞ্জরী, পুষ্পবাগ এবং কাব্যগ্রন্থ- প্রিয় পঙক্তিমালা, জননী আমার অহঙ্কার। তিনি ‘উত্তর নক্ষত্র’ নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেন।

টিপু সুলতান এক সময় ভালো গল্প লিখতেন। তাঁর সম্পর্কে কবি বেলাল চৌধুরীর উক্তিটি স্মরণীয়-‘হাসান হাফিজুর রহমানের সূত্রে পরিচয় হলো এক উজ্জ্বল মেধাবী যুবকের সঙ্গে। অভিভাবকের একামত্ম বাধ্যগত ছেলে বগুড়ার টিপু সুলতান এসেছে ঢাকায় পড়াশুনার ব্রত নিয়ে। টিপু তখন বেশ কয়েকটি নজরকাড়া গল্প লিখে ফেলেছেন। ‘সমকাল’-এ প্রকাশিত ‘ডাহুক’ তো রীতিমতো একটা ভালো গল্প। জহির রায়হান সম্পাদিত ‘প্রবাহতেও’ একটি চমৎকার গল্প বেরিয়েছিল টিপু’র। এরকম এক সম্ভাবনাময় লেখকজীবন কেন যে অঙ্কুরেই বিনষ্ট হয়ে গেল তা আজও আমার কাছে এক বিস্ময়।’ কয়েক বছর আগে তিনি লোকামত্মরিত হয়েছেন।

খন্দকার মুহম্মদ আজিজুল হক। ১৯৩৬ খৃষ্টাব্দে দুপচাঁচিয়া থানার তালোড়ায় জন্মগ্রহণ করে। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। ‘হয়তো নক্ষত্র নয়’ তাঁর একমাত্র গল্পগ্রন্থ। তাঁর গবেষণাগ্রন্থ-ভাষাতত্ত্বের নতুন দিগমত্ম ও আধুনিক ভাষাতত্ত্বের, নৈরাজ্য, অসঙ্গতি ইত্যাদি। তিনি ভাষার সরসতায় তুলে ধরতে অভ্যসত্ম। ‘দৈনন্দিন’, ‘জীবন যেখানে যেমন’ গ্রন্থগুলো তারই উজ্জ্বল উদাহরণ।

সাইফুল বারী কবিতা, নাটক এবং ছোটগল্প লিখেছেন। কবিতা গ্রন্থ- ‘দুই বিপরীত মেরুতে’, ‘একটি জীবন, জীবনের দৃষ্টিকোণ, ‘ভাগ্য কে ফেরাবে আমার’, ‘ক্রমাগত আমি’। টেলিভিশনের জন্যে তিনি নাটক লিখেছেন। ‘জোনাকী জ্বলে’ সিরিজ নাটকটি অন্যতম। গানও রচনা করেছেন। ১৯৯০ খৃষ্টাব্দে পর্যমত্ম তিনি জাতীয় সম্প্রচার কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হিসেবে কর্তব্যরত ছিলেন।

বগুড়া সাহিত্য কুটির-এর কর্ণধার এম শামসুল হক নাটক ও উপন্যাস লিখেছেন বেশ কয়েকটি। ‘একদিনের কাহিনী’, ‘মিথ্যার খেসারত’ তাঁর রচিত নাটক। একজন নাট্যমোদী এবং নাটকসহ অনেক গ্রন্থ তিনি প্রকাশ করেছেন। তাঁর উপন্যাসের নাম- ‘ফরিয়াদ’, ‘প্রেমের শেষ চিঠি’, ‘পলাতকের চিঠি’।

মুহম্মদ আব্দুল মতীন সাংবাদিক হলেও তিনি একজন ইতিহাস অনুসন্ধিৎসু। প্রবন্ধ রচনায় সিদ্ধহসত্ম। তাঁর অনেক প্রবন্ধ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়ে সুধী সমাজের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে। ইতিহাস, সংস্কৃতি, ঐতিহ্যের প্রতি তাঁর প্রগাঢ় আকর্ষণ আমাদের অনুপ্রাণিত করে। তার ‘দাঁড়কাকের ডায়েরী, বুড়ো পৃথিবী’ উল্লেখযোগ্য রচনা।

ড.মুসত্মাফা নুরউল ইসলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ছিলেন। তাঁর রচিত ‘মুসলিম বাংলা সাময়িক পাঠকদের মধ্যে দারুণ আগ্রহের সৃষ্টি করেছিল। রওশন আখতার, যিনি এম আর আখতার মুকুল নামে পরিচিত। স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালীন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত ‘চরমপত্র’ পাঠক। যাঁর কণ্ঠ মুক্তিযোদ্ধাদের মনে উৎসাহ যোগাতো,সেই এম আর আ্খতার মুকুল স্বাধীনতার পরে অনেক গ্রন্থ রচনা করেছেন। তিনি একজন স্পষ্টবাদী লেখক হিসেবে স্বীকৃত। তাঁর অসংখ্য গ্রন্থের মধ্যে ‘আমি বিজয় দেখেছি’, ‘কোলকাতা কেন্দ্রিক বুদ্ধিজীবী’ বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছে।

ড. মুসত্মফা নূরউল ইসলাম এখন ঢাকা থেকে ‘সুন্দরবন’ নামে সৃজনশীল একটি ত্রৈমাসিক পত্রিকা প্রকাশ করেছেন। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান এবং শিল্পকলা একাডেমী মহাপরিচালকের পদ অলংকৃত করেন।

শাহ আনিসুর রহমান প্রথমে অধ্যাপনা ও পরে সাংবাদিকতায় আত্মনিয়োগ করেন। তিনি রাজশাহী থেকে দৈনিক বার্তার সিনিয়র সহ-সম্পাদরেক দায়িত্ব পালন করেন। ‘আড্ডা’ নামেতাঁর গল্পগ্রন্থ আছে।

ড. এনামূল হক ১৯৩৭ খৃষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় যাদুঘরের মহাপরিচালক ছিলেন। তিনি ষাট দশকের প্রথমাবধি সিকান্দার আবু জাফরের ‘সমকাল’ সাহিত্য পত্রিকার পাশাপাশি ‘উত্তরণ’ নামে সাহিত্য পত্রিকা সম্পাদনা করেন। উত্তরণের দেশে, হাজার তারের বীণাসহ তাঁর প্রায় ১২টি কাব্যগ্রন্থ এবং ইসলামী কৃষ্টি ও সংস্কৃতি বিষয়ক বেশকিছু গ্রন্থ বিদ্যমান। টেলিভিশনে তাঁর উপস্থাপনায় ১দেখা যায় নাই চক্ষু মেলিয়া’বাংলাদেশের পুরাকীর্তি বিষয়ক চমৎকার অনুষ্ঠান হিসেবে সুনাম অর্জন করেছিল। ইঞ্জিনিয়ার মুহম্মদ নূরুল ইসলাম, বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গিতে ধমীয় গ্রন্থ রচনায় সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি সারিয়াকান্দি থানায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর রচিত ‘পৃথিবী ঘোরে না সূর্য ঘোরে, বৈজ্ঞানিক মুহম্মদ, বিজ্ঞান না কোরান, ঝংকার’ ইত্যাদি বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করে। নূরুল ইসলাম মন্ডল জন্ম ১৯৩৩, ১লা অক্টোবরে সারিয়াকান্দ উপজেলার হাটশেরপুরে। মনীষী একাদশ, নারীর মূল্যায়ন ও আল্লাহর ভাষায় রাসুল (সঃ) নামে তিনখানি গ্রন্থ রচনা করেন।

মাফরুহা চৌধুরী ১৯৩৬-এ কাটনারপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কবি তালিম হোসেনের স্ত্রী এবং প্রখ্যাত নজরুল সঙ্গীত শিল্পী শবনম মুসত্মারীর মাতা। মূলত গল্পকার হিসেবে তিনি খ্যাত। অরণ্যগাথা ও অন্যান্য গল্প,স্মলিত নক্ষত্র সহ প্রায় ১০টি গল্পগ্রন্থ, দু’টি উপন্যাস এবং তিনটি কাব্যগ্রন্থ আছে। প্রবন্ধ গ্রন্থ-ক্রামিত্মকালের ছায়া, সঙ্গ-প্রসঙ্গ। শিশুতোষ রচনা- একটি ফুলের জন্য, পানিতে কখনো আগুন লাগে। তাঁর দুটি অনুবাদগ্রন্থ আছে।

জাহাঙ্গীর চৌধুরী যাঁর মূল নাম মফিজ চৌধুরী,জয়পুরহাট জেলার মঙ্গলবাড়ী গ্রামে ১৯১৪ খৃষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি এক সময় বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীত্ব পদ অলংকৃত করেন। রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও সাহিত্যে নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। তাঁর অনুদিত ‘আধুনিক কোরিয়ার কবিতা’বেশ সুনাম অর্জন করে। এছাড়াও শেক্সপীয়রের কিং লিয়র,রোমিও জুলিয়েট, এন্টনী ও ক্লিওপেট্টা তিনি অনুবাদ করেন। তাঁর উপন্যাসের নাম সোনালী প্রহর, বটতলার ঝড় এবং স্মৃতিকথাঃ বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রীসভায়। ১৯৯৩ খৃষ্টাব্দে তিনি পরলোকগমন করেন। শহীদ অধ্যাপক মোহসীন আলী দেওয়ান অধ্যাপনা পেশার পাশাপাশি সাংবাদিকতা ও সাহিত্যের একজন নিবেদিতপ্রাণ মানুষ ছিলেন। তিনি ১৯৩৯ খৃষ্টাব্দে জয়পুরহাট জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বগুড়া প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। শিশুতোষ রচনা ‘গল্পের চিড়িয়াখানা ও প্রথমা’চমৎকার গ্রন্থ। বাংলা সাহিত্যের আধুনিক ইতিহাস,ছন্দ পরিচয় তাঁর প্রবন্ধ গ্রন্থ। নাটিকা-নীলরক্ত। তার সম্পাদনায় ষাট দশকের প্রথমার্ধে ‘অতএব’সাহিত্য পত্রিকা লেখক সৃষ্টিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। তাঁর সম্পাদনায় বগুড়া বুলেটিন, উত্তরবঙ্গ বুলেটন, বগুড়া বার্তা ইত্যাদি সংবাদ-নিবন্ধজাতীয় পত্রিকা বেশ সুনাম অর্জন করে। শেরপুর কলেজের অধ্যক্ষা থাকাকালীন ১৯৭১ খৃষ্টাব্দে পাকিসত্মানী হানাদার বাহিনীর হাতে ধৃত এবং নিহত হন।

কবি জেব-উন-নেছা জামাল ১৯২৬-এ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মূলত গীতিকার হিসেবে সুপরিচিত। তিনি কল্পশিল্পী আঞ্জুমান আরা বেগমের বড় বোন এবং কণ্ঠশিল্পী জিনাত রেহানার মা। তাঁর রচিত গ্রন্থ- আমার যত গান, গান এল মোর মনে, সাগরের তীর থেকে। অনুবাদ গ্রন্থ- ‘বেল সাহেবের টেলিফোন আবিষ্কার’ এবং গল্পগ্রন্থ- ‘হারানো দিনের গল্প’। গাজীউল হক ভাষা আন্দোলনের অন্যতম নেতা এবং রাজনীতিবিদ। পেশায় একজন আইনজীবী হলেও তিনি ‘জেলের কবিতা’ লিখে সুনাম অর্জন করেন। তাঁর অন্যান্য গ্রন্থের নাম- এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, বাংলাদেশ আন চেইনড ইত্যাদি। জন্ম: ১৯২৯ খৃষ্টাব্দে।

হাসনা আকরাম ১৯৩৩ খৃষ্টাব্দে জয়পুরহাটে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর রচনার মধ্যে কবিতাগ্রন্থ- সংবতীকা, গল্পগ্রন্থ-হাসি কাশী বিড়ালী, উপন্যাস- এক পলকে, এক নদীর দুই কিনারা, শিশুতোষ রচনা- ছবি দেখে ছড়া, রঙিন প্রজাপতি উল্লেখযোগ্য।

আবেদ আলী আহমদ, স্বভাব কবি। জন্ম ২রা ফেব্রুয়ারি ১৯৩৬ খৃষ্টাব্দে বগুড়ার গাবতলীতে। তাঁর কাব্যগ্রন্থ- প্রেমের বাঁশরী (১৯৬২), স্বর্গের মত বেঁচে থাকা, রক্তে ভেজানো বাংলা আমার, গীতিমঞ্জরী, আমার প্রিয়া আর আমি দু’জনে একজন ইত্যাদি। মৃত্যুঃ ১৯শে এপ্রিল ২০০৭।

মাহমুদা আখন্দের ‘বিজয়ননী’ ও ‘রঙ-বেরঙ’, শেফালী রহমানের ‘প্রীতি নয় স্মৃতি’ ও ‘শ্লো পয়জন’ এবং জাহানারা হকের ‘ফুলের বিয়ে’, আবু হায়দার সাজেদুর রহমানের মডেল, বিচিত্রা-উপন্যাস ও রহস্যোপন্যাস কালনাগিনী, ভাইপারের মরণ ছোবল, মৃত্যুলোভী ভাইপার। সৈয়দ ওমর আরী চৌধুরীর ‘প্রিলুড ইন বাংলাদেশ’। আব্দুর রাজ্জাকের ‘কন্যাকুমারী’ উপন্যাস, সাংবাদিক আসফ-উদ-দৌলা রেজার রাজনীতি ও সরকার, মুহম্মদ ফজলুল হকের ‘তৃষ্ণার্ত বিহঙ্গ’ কাব্যগ্রন্থ, জগলুল হায়দার আফরিকের বিপ্লবী নায়িকা, সিন্ধু নামার দেশে এই সময়ের উল্লেখযোগ্য রচনা হিসেবে পাঠক মহলে স্বীকৃতি লাভ করতে পেরেছে। ডাঃ আব্দুল করিমের ‘ভ্রমণ কাহিনী’ পথে প্রবাসে, আব্দুল মজিদ ফকীরের নিউইয়র্ক ভ্রমণ’ উল্লেখযোগ্য রচনা।

এই সময় এডওয়ার্ড ঘূর্ণায়মান রঙ্গমঞ্চকে ঘিরে বেশকিছু নাট্যকার নাটক রচনায় মনোনিবেশ করেন। প্রসাদ বিশ্বাসের নাজেহাল, উত্তরের স্বপ্ন, অবাক পৃথিবী, অবিচার, জবাবদিহিতা, পাকা রাসত্মা, আমজাদ হোসেনের স্বামী-স্ত্রী, ফিফটি ফিফটি, জালাল উদ্দিনের শহীদ তিতুমীর, শোণিতধারা উল্লেখযোগ্য।

বগুড়ার সাহিত্য : ষাট-এর দশক : প্রথমার্ধ :

বগুড়ায় ষাট-এর দশকের প্রথমার্ধে অধ্যাপক মোহসিন আলী দেওয়ানের ‘অতএব পত্রিকাকে ঘিরে একটি সাহিত্য পরিমন্ডল গড়ে উঠেছিল। ‘অতএব’ আধুনিক সাহিত্যয়ীতিকে পুরোপুরি ধারণ করেনি। রহীম চৌধুর, কমলেশ সেন, খাজা জহুরুল হক, মহীউদ্দীন, আবু আফতাব, মোহসিন আলী দেওয়ান, শাহ আনিসুর রহমান এবং পরবর্তীতে ষাটের শক্তিধর কবিদের মধ্যে ফারুক সিদ্দিকী, মহাদেব সাহা, বজলুল করিম বাহারের লেখা প্রকাশ পেয়েছে। ১৯৬২ তে ‘অতএব’ সাহিত্য পুরষ্কার দেওয়ার কতা ঘোষণা করা হয়েছিল এবং বগুড়া জেলার কবি-সাহিত্যিকদের জীবনী সংগ্রহের এক মহতী উদ্যোগ ‘অতএব’-এর পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এ জাতীয় উদ্যোগ সাথর্ক হয়েছিল কি-না সে সম্পর্কে বেশি কিচু জানা যায় না। আমান উল্লাহ খান, রহিম চৌধুরী দু’জনে ষাট-এর দশকের তুখোর ছাত্রনেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। আমান উল্লাহ খান রাজনীতির সাথে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে নিয়েছিলেন। তিনি ছিলেন দৈনিক ইত্তেফাকের উত্তরাঞ্চল প্রতিনিধি। তাঁর রচিত ‘আজকের বগুাড় জেলার পরিচিতিমূলক একটি চমৎকার গ্রন্থ। অনেক মেঘ, লাল মাটির আর্তনাদ তাঁর রচিত গ্রন্থ। তিনি ১৯৬৮ তে ‘নতুন দিন’নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেন। স্বাধীনতা উত্তরকালে তার সম্পাদিত ‘দৈনিক বাংলাদেশ’ উত্তরাঞ্চলের প্রথম দৈনিক হিসেবে পরিচিত। রহিম চৌধুরী চাকুরিসূত্রে বগুড়া ত্যাগ করেছিলেন। তাঁর একটি কাব্যগ্রন্থ ‘প্রতীক্ষা’ অনেক পরে প্রকাশিত হয়। তিনি বর্তমানে দৈনিক পত্রিকায় কলাম লেখক হিসেবে পরিচিত। এছাড়া তিনি বিভিন্ন সামাজিক ক্রিয়াকান্ডে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। আবু বকর সিদ্দিক-এর ‘পূর্ব বগুড়ার পল্লী সাহিত্য (গবেষণা গ্রন্থ) (১৯৬৩), বন্ধু বিচ্ছেদ (১৯৬৮), বান্ধব বডি (নাটক) ১৯৭০ প্রকাশিত হয়। খাজা জহুরুল হক বর্তমানে জয়পুরহাটে আইন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাঁর কয়েকটি ছোটগল্প সেই সময় বেশ সুনাম কুড়িয়েছিলেন। পরবর্তীতে তিনি লেখালেখি ছেড়ে দেন।

১৯৬২-তে মোহসীন আলী দেওয়ান সম্পাদিত ২টি গল্পগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। একটির নাম ‘গল্পের চিড়িয়াখানা ও ‘প্রথমা’। ‘গল্পের চিড়িয়াখানা সেই সময়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠ্যপুসত্মক হিসেবে পঠিত। এই গ্রন্থে মোট ৯টি গল্প আছে। লিখেছেন- রহীম চৌধুরী, কমলেশ সেন, মোহসীন আলী দেওয়ান, লুৎফর রহমান, শাহ আনিসুর রহমান প্রমুখ।

প্রফেসর মুহ. মাহফুজুর রহমান বগুড়া জেলার ধুনট থানার ঝিনাই গ্রামে ১৯৪১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার লেখা ‘ফকীর সন্ন্যাসী বিদ্রোহ’, ‘ওয়াহ্হাবী আন্দোলন ও বগুড়া’ গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। মহাতাব উদ্দিন আহম্মেদ। যার ৫টি কাব্যগ্রন্থ ও ৫টি উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছে। কাব্য ‘জীবন বীণা’ ‘বাশের বাঁশরী’, ‘সুর তরঙ্গ’, ‘স্ফুলিঙ্গ ও ঝংকার’ উপন্যাস-‘মৃগ-তৃষ্ণিকা’, ‘পুনর্মিলনী’, অমিত্মম মিলন ও দুখিনী বঙ্গ জননী মুক্তিযুদ্ধ ও একটি বিপর্যসত্ম প্রেম। তিনি সাহিত্যে ‘কবি জসিম উদ্দিন সাহিত্য পুরস্কার’ ১৯৯৫ পেয়েছেন।

বগুড়ার সাহিত্য : ষাট-এর দশক : দ্বিতীয়ার্থ

ষাট দশকের মধ্যবর্তী সময়ে পঞ্চাশ-এর দশকের কবিতা ও গল্পকে পাশ কাটিয়ে ভিন্ন আঙ্গিক এবং বিষয় বৈচিত্র্য নিয়ে প্রাণবমত্ম একদল তরুণ হাত রাখেন সাহিত্যের উত্তপ্ত ভূমিতে। সাহিত্যের এই পালাবদলে নিঃসন্দেহে চমক ছিল, ছিল ভিন্নতর স্বাদ। এদের খোলামেলা বক্তব্যের সহায়ক ছিল নিজেদেরই সম্পাদিত কবিতা ও গল্প পত্রিকা যা ‘লিটল ম্যাগাজিন’ নামে অভিহিত। ষাটের প্রথমার্ধে ঢাকা থেকে প্রকাশিত হচ্ছিল- বক্তব্য, স্বাক্ষর, সাম্প্রতিক, কালবেলা, না, কণ্ঠস্বরসহ আরো কিছু পত্রিকা। সাহিত্যের উদ্দীপ্ত তারুণ্য নিয়ে তখন আব্দুল মান্নান সৈয়দ, আসাদ চৌধুরী, রফিক আজাদ, নির্মলেন্দু গুণ, আবুল হাসান, সিকদার আমিনুল হক প্রমুখ এগিয়ে যাচ্ছেন। অন্যান্য জেলার মতো বগুড়া জেলাতেও ষাট-এর দশকের মধ্যবর্তী সময় থেকে একদলউচ্চাকাঙ্ক্ষী সাহিত্যপ্রেমী তরুণ তাদের স্বল্প ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়েছিলেন, গড়ে তুলেছিলেন সাহিত্যের এক অনুকূল আবহাওয়া।

বগুড়ার সাহিত্যঃ লিটল ম্যাগাজিন ও ষাটদশকী লেখকবৃন্দ:

আধুনিক সাহিত্যের দিগ্বলয়ের সঙ্গে পরিচিত হয়ে বগুড়ার কিছু সাহিত্যকর্মী ষাট দশকের মধ্যবর্তী সময়ে লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করেন। বয়সে এরা ছিলেন সবাই তরুণ। তারুণ্যের সেই রক্তিম উচ্ছ্বাসের উদ্বেলিত হয়ে নিজেরাই পত্রিকা সম্পাদনের মাধ্যমে তাঁদের শক্তিমত্তা জানিয়ে দিতে থাকেন। বগুড়ার সাহিত্যের অঙ্গন হয়ে ওঠে মুখরিত। লিটল ম্যাগাজিন আন্দোলনে নিজেদের সম্পৃক্ত করে ষাট দশকে যাঁরা আত্মপ্রকাশ করেন তাঁরা হলেন-ফররুক সিদ্দিকী, কাজী রব, সাহেদুর রহমান, মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, মনোজ দাশগুপ্ত, বজলুল বাহার করিম বাহুর, সাইফুল ইসলাম, সাম হেদায়েতুল্লাহ, রেজাউল করিম চৌধুরী, খন্দকার আব্দুল রহিম হীরু। এখানে আরো দু’জন তরুণের নামোল্লেখ করতে চাই, তাঁরা বিভিন্ন জেলার অধিবাসী হলেও তাঁদের সাহিত্যযাত্রা শুরু বগুড়ায়। তাঁরা হলেন-কবি মহাদেব সাহা এবং প্রয়াত কবি শাহনূর খান। বগুড়ায় নতুন কাব্যান্দোলনে তাঁরাও ছিলেন সক্রিয়। ষাট দশকের মধ্যবর্তী সময়ে লিটল ম্যাগাজিন ‘বিপ্রতীক’ ও ‘পদধ্বনি’ আত্মপ্রকাশের মধ্য দিয়েই বগুড়ায় নতুন কাব্যযাত্রা শুরু হয়। বিপ্রতীক সম্পাদনা করেছেন ফারুক সিদ্দিকী, কাজী রব এবং মহাদেব সাহা। পরবর্তীতে শুধু ফারুক সিদ্দিকী। ‘পদধ্বনি’ সম্পাদক ছিলেন মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও মনোজ দাশগুপ্ত। আরো কয়েকটি লিটল ম্যাগাজিন এই সময় বের হয়। নূর মোহাম্মদ তালুকদার সম্পাদিত ‘স্বরক্ষেপ’, রেজাউল করিম চৌধুরী ও সাইফুল ইসলাম সম্পাদিত ‘অপরাহ্ন’, শাহনূর খান ও আরেফুল ইসলাম সম্পাদিত ‘অবেলা’। ফারুক সিদ্দিকীর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘স্বরচিহ্নে’ ফুলের শব প্রকাশিত হয় ১৯৭২-এ।

গ্রন্থটির প্রকাশক ছিলেন রেজাউল করিম চৌধুরী। তাঁর কবিতা আপাত জটিল হলেও স্বভাবে ‘রোমান্টিক’ শব্দতাড়িত। এই কবির আর কোনো কাব্যগ্রন্থ বের হয়নি। অনুবাদ কর্মেও তিনি সিদ্ধহসত্ম। প্রবন্ধেও তাঁর সমান দক্ষতা। সম্প্রতি বেরিয়েছে তাঁর প্রবন্ধগ্রন্থ ‘তামসিক নিসর্গে ঈশ্বরনামা ও অন্যান্য’। তাঁর সম্পদিত ‘বিপ্রতীক’কবিতাপত্রটির ইতোমধ্যেই ছাবিবশটি সংখ্যা বেরিয়ে গেছে। ফারুক সিদ্দিকী পত্রিকা সম্পাদনার জন্য ১৯৮৯-এ বগুড়া লেখকচক্র পুরস্কার পেয়েছেন।

একজন বহুপ্রসূ কবি হিসেবে কাজী রবের পরিচয়। তাঁর কবিতায় একই সঙ্গে রাজনীতি, প্রেম, আমত্মর্জাতিকতা উদ্ভাসিত হয়ে ওঠে। ১৯৯০ থেকে ১৯৯৪ এই পাঁচ বছরের তাঁর ৫টি কাব্যগ্রন্থ বেরিয়েছে। গ্রন্থগুলোর নাম ‘ফণিমনসার সানগ্লাস’, ‘তুমি হে দুধের মাছি’, ‘আবাবিল ও বিশল্যকরণীর মার্চ এপ্রিল’, ‘পাখির পার্লামেন্ট’ ও নক্ষত্রের নিকোটিন’। মৃত্যুর পর তাঁর সর্বশেষ কাব্যগ্রন্থ ‘চোখ এক জলের সংসার’ প্রকাশিত হয়। ১৯৮৯ বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৯৬ খৃস্টাব্দের ৩০ এপ্রিল তিনি পরলোক গমন করেন।

বজলুল করিম বাহার বগুড়ার সাহিত্যাঙ্গনের একজন সক্রিয়া লেখক। অনুবাদেও তিনি পারঙ্গম। তাঁর কোনো কবিতার বই বের হয়নি। তিনটি প্রবন্ধের বই আছে-‘সমকালীন কবিতার দিগ্বলয়’ ‘নানা অনুভবে’ ও ‘কথার মেওয়াসকল’। ছো গল্পের বই ‘হে বৃক্ষলতা’ লেখক হিসেবে ১৯৮৯ বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার লাভ করেন।

সাহেদুর রহমান ছাত্রাবস্থায়-‘বিপ্রতীক’ কবিতাপত্রে বগুড়ার পাঁচজন কবির ৫টি কবিতা ইংরেজিতে অনুবাদ করেন। তাঁর কয়েকটি গ্রন্থ আছে। কাব্যগ্রন্থ ‘প্রচ্ছদপট’। প্রবন্ধ ‘অভিনয়ে নড়াচড়া ও কথা বলা’। অধ্যাপনা পেশা ছেড়ে দিয়ে বর্তমানে চলচ্চিত্র জগতের কাহিনী লেখক হিসেবে জীবকা বেছে নিয়েছেন।

মুহম্মদ শহীদুল্লাহ কবিতা-প্রবন্ধ রচনা করেন। তাঁর সাতটি কাব্যগ্রন্থ-ভিজে মাঠের রাখাল বালক (১৯৯০), দুই প্রহরের রোদ (১৯৯২), বাদামী বৃক্ষলিপি (১৯৯৪), বিচূর্ণ কবিতা (১৯৯৬), দূর থেকে আরো দূর (২০০০), অমত্মর্গত কবিতা সকল (২২০৩), হে কবিতা জীবন (২০০৭), প্রবন্ধ গ্রন্থ ৫টিঃ কবিতা অনুষঙ্গ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (১৯৯১), জহির রায়হান ও তাঁর শিল্প ভূবন (২০০১), শব্দ ও নৈঃশব্দ্য (২০০৪), দুই কবিঃ রৌদ্র দিনের সহযাত্রী (২০০৫) ও কয়েকজন কবিঃ অমত্মরঙ্গ আলোকে (২০০৬)। সম্পাদনাঃ কবি কাজী রব নিবেদিত কথামালা (২০০০)। তাঁর সম্পদিত পত্রিকার নাম ‘দধ্বনি’, ‘অনুকাল’, ‘অর্কেস্ট্রা’, ‘ঐতিহ্য’, ‘আত্মপ্রকাশ’, ‘নির্বাচিত কবিতা’। ১৯৮৯-এ বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার লাভ করেন তিনি।

মনোজ দাশগুপ্ত ষাট দশকের একজন রোমান্টিক জীবনবাদী কবি। তাঁর একমাত্র কবিতাগ্রন্থ ‘সজল বৃক্ষের দিকে’ তাঁর মৃত্যুর পর প্রকাশিত হয়। তিনি ১৯৯৭ খৃস্টাব্দে ৬ সেপ্টেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। মুহম্মদ সাইফুল ইসলাম গল্প ও কবিতা লিখতেন। রাজনৈতিক কর্মকান্ডের প্রেক্ষিতে আততায়ীর গুলিতে নিহত হন। ‘বাংলা সাহিত্য সারণি’ তাঁর একটি উল্লেখযোগ্য প্রচেষ্টা। সাহিত্যের কাল নির্ণয়ের ক্ষেত্রে এটি সহায়ক। মুহম্মদ সাইফুল ইসলাম, স, ম হেদায়েতুল্লাহ এবং রেজাউল করিম চৌধুরীর মিলিত প্রচেষ্টা সাহিত্য পত্রিকা ‘অপরাহ্ন’। স, ম হেদায়তুল্লাহর কবিতা ও আলোচনার তীক্ষ্ণ হাত ছিল। রেজাউল করিম চৌধুরী ষাট-এর দশকের আরেক শক্তিশালী কবি। কবিতার ভাষা ও শব্দচয়নে তিনি পরিশ্রমী। ‘ভালমন্দের অপরাহ্ন’, ‘পরাজিত শালিকের অনুশোচনা’, চাঁদের হাতে তরবারি’, সহ ছয়টি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তাঁর বলিষ্ঠ সম্পাদনায় ‘অর্কেস্ট্রা’ সাহিত্যপত্র ইত্যেমধ্যে পাঠ মহলে আদৃম হয়েছে। খন্দকার আব্দুর রহিম ছোটগল্প লেখক। ষাট দশকে বগুড়া জেলার লেখক যাঁরা জীবিকাসূত্রে বাইরে অবস্থান করেছেন তাঁদের মধ্যে আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, আনওয়ার আহমত অন্যতম। আখতারুজ্জামান ইলিয়াস বাংলাদেশের একজন প্রতিষ্ঠিত কথা সাহিত্যিক। তাঁর গল্পগ্রন্থের সংখ্যা চারঃ ‘অন্যঘরে অন্যস্বর’, ‘খোঁয়ারি’, ‘দুধেভাতে উৎপাত’ এবং ‘দোজখের ওম’। উপন্যাসের নাম ‘চিলেকোঠার সেপাই’ ও ‘খোয়াব নামা’। আন্ওয়ার আহমদ কবি এবং ছোটগল্প লেখক এবং সর্বোপরি একজন সম্পদক। তাঁর কাব্যগ্রন্থগুলো হচ্ছে-রিলকের গোলাপ, মানবসম্মত বিরোধ, নির্মাণে আছি, হঠাৎ চলে যাবো, শেষ সম্বল শেষ দান, অঙ্গ তোমার কাব্য করে, নীল কষ্টের ডাক, প্রেম পদাবলী, উনষাটের পদাবলী, ষাটের প্রামত্ম ছুঁয়ে, অটর থাকা ধীর সন্যাস, উড়ো খই গোবিন্দ নমঃ। গল্পগ্রন্থ-অন্ধকারের সীমানা, আন্ওয়ার আহমদের গল্প, অন্ধকার, সতর্ক প্রহরা ও অন্যান্য গল্প। সম্পাদিত গ্রন্থ-পঞ্চশর, আজকের কবিতা, সিলেক্টেড পয়েমস অব আবদুল মান্নান সৈয়দ, একজন কবি দিলওয়ার, কবি আতাউর রহমান, একজন কবি আহমদ রফিক, একজন গল্পকার (আবদুল মান্নান সৈয়দ)। তিনি সুদীর্ঘ ৩৮ বছর যাবৎ কবিতা পত্রিকা ‘কিছুধ্বনি’, গল্প পত্রিকা ‘রূপম’ সম্পাদনা করেছেন এবং মৃত্যুঅবধি সম্পাদনা করেছেন। তাঁর রূপম প্রকাশনী থেকে শতাধিক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। বিশেষ করে এদেশের অসংখ্য তরুণের প্রথম বই তাঁর রূপম প্রকাশনী প্রকাশ করেছে। আখতারুজ্জামান ইলিয়াস ১৯৯৪-এর জানুয়ারি এবং আন্ওয়ার আহমদ ২০০৩ খৃস্টাব্দের ২৪ ডিসেম্বর লোকামত্মরিত হন।

জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বগুড়া আযিজুল হক কলেজে অধ্যয়নকালীণ সাহিত্যচর্চায় আত্মনিয়োগ করেন। পরবর্তীকালে ষাট দশকের একজন গল্পকার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। বহে না সুবাতাস, দুর্বিনীত কাল, সিতাংশু তোর সমসত্ম কথা’ অন্যতম গল্পগ্রন্থ। এখন আমেরিকা প্রবাসী। রবি ভট্টাচার্য, শ্যামল ভট্টাচার্য ভ্রাতৃদ্বয় মূলত নাটক রচনায় পারদর্শী। রবি ভট্টাচার্যের দাইনেম ইজ, মেডেল, আলোয় খুঁজে ফেরা মঞ্চ সফল নাটক, শ্যামল ভট্টাচার্য নাট্য রচনা, নির্দেশনার পাশাপাশি অভিনয়েও সমান দক্ষ।

আলাউদ্দীন অনেক নাটক রচনা করেছেন। বোবা কান্না, নকল মানুষ, বিষের পেয়ালা, মন্টুর পাঠশালা সুনাম অর্জন করেছে। তিনি ক্ষেতলাল থানার অধিবাসী। মৃণালকামিত্ম সাহা একজন সঙ্গীতশিল্পী হলেও নাটক রচনাতেও তিনি সমান দক্ষ। নাট্য বিষয় আলোচনাও তাঁর আছে। তাঁর রচিত নাটক-‘ককটেল’।

রবিউল আলম জন্ম বারপুর, বগুড়া ১লা ১৯৪৮। নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা এবং গল্পকার। চাকরি সুবাদে ঢাকায় বসবাস করছেন। তাঁর অনেকগুলো নাটক বেতার ও টিভিতে প্রচারিত হয়েছে এবং এখনও হচ্ছে। টেলিভিশন ও বেতারে উল্লেখযোগ্য নাটক-নাপুস, সমাপ্তি অন্য রকম, এক যে ছিল দুই হুজুর, কখনো সৈকতে, আরো একজন রাবেয়া, পরবাসী, সবুজিয়া, বিপ্রতীপ, আমি যখন বন্দী, এক সকালে, যার সাথে যার, উল্টো ফাঁদ, একজন মিশার ঈদ, তোমরা আমার ইত্যাদি।

ষাটের আরো যাঁরাঃ

ষাট-এর দশকে আরো যাঁরা সাহিত্যভূমিতে পা রেখেছিলেন তাঁরা হলেন-নূর মোহাম্মদ তালুকদার, মুহম্মদ রহমতুল বারী, মোসত্মফা নূরউল ইসলাম, মিনতি কুমার রায় প্রমুখ। নূর মোহাম্মদ তালুকদার ছাত্রাবস্থায় ১৯৬৭ খৃস্টাব্দের শেষে দিকে ‘স্বরক্ষেপ’ নামে একটি লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশের মাধ্যমে সাহিত্যচর্চা শুরু করেন।। তাঁর দু’টি কাব্যগ্রন্থ-বিবাগী কাল ও শুক্লাতিথির চিঠি। উপন্যাস-জঠরে আগুন জ্বলে। মুহম্মদ রহমতুল বারী পেশায় ডাক্তার, শেরপুর নিবাসী। তিনটি কাব্যগ্রন্থ তাঁর-স্বপ্নের সোনালী আবীর, জেগে থাকি, সুখ-দুঃখ পদাবলী। একমাত্র গল্পগ্রন্থ-বিকাউ। অধ্যক্ষ মোসত্মফা নূরউল ইসলামের একমাত্র কাব্যগ্রন্থের নাম-‘আমাকে আসতে বললে না’। অধ্যাপক মিনতি কুমার রায় লিখেছেন একটি গবেষণাগ্রন্থ-সমালোচনাতত্ত্ব। ষাটের একেবারে শেষ পর্যঅয়ে আরো দু’একজন লেখকের নাম পাচ্ছি-এঁরা হলেন-আব্দুর রফিক খান, তাঁর গ্রন্থ-তবুও মানুষ (১ম ও ২য় খন্ড), তিনি কবি কে এম শমশের আলী কনিষ্ঠ ভ্রাতা, বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী। ফজলুল আলম-এর গ্রন্থ-সাহসিনী নারী, মনের ব্যভিচার, পরবাস, প্রশ্ন থেকে যায় ইত্যাদি। আরেকজন লেখক সালেহা চৌধুরী বর্তমানে লন্ডনে প্রবাসী। তিনি উপন্যাস, গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ, ছড়া লিখেছেন। যখন নিঃসঙ্গ, উষ্ণতর প্রপাতে, তাহিতি এবং অন্যান্য। উপন্যাস-আনন্দ, বিন্নি ধানের খই, ময়ূরীর মুখ, প্রবন্ধ-সাহিত্য প্রসঙ্গে, পরমা, প্রবাস চিমত্মা।

বগুড়ার সাহিত্যঃ সত্তর-এক দশকঃ স্বাধীনতাত্তোর আকাঙ্ক্ষা:

স্বাধীন বাংলাদেশে শুরুতেই নতুন লেখকদের আমরা পাইনি। দেশের বিপর্যসত্ম অর্থনৈতিক অবস্থা, চারদিকে ধবংশ আর সত্মূপের মাঝখানে দাঁড়িয়ে একদিকে স্বাধীনতা পাওয়ার আনন্দ, অন্যদিকে স্বজন হারানোর হাহাকার সাহিত্যের ভুবনকে সিত্মমিত করে রেখেছিল। ১৯৭২-এ ৬ জুন আমাদের এক কাব্যসহচর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের কনিষ্ঠ অধ্যাপক ষাটের অন্যতম তরুণ কবি হুমায়ন কবির আততায়ীর গুলিতে নিহত হলেন। আগস্টে কবি ফারুক সিদ্দিকী ‘বিপ্রতীক’ কবিতাপত্রের অষ্টম সংখ্যা প্রকাশ করেন এবং সেখানে কবি হুমায়ুন কবিরের মৃত্যুতে শোকজ্ঞাপন করা হয় এভাবে-‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বকনিষ্ঠ অধ্যাপক ও তরুণ কবি বিপ্রতীক গোষ্ঠীর অন্যতম শুভানুধ্যায়ী হুমায়ুন কবিরকে ছয়ই জুন রাত্রি ন’টায় রহস্যজনকভাবে হত্যায় আমরা গভীরভাবে ব্যথিত হয়েছি, মর্মাহত হয়েছি। সব সময় সকল হত্যাকান্ড নিন্দনীয়।’

১৯৭৪-এ ‘অনুকাল লেখ গোষ্ঠী’র ছায়াতলে বেশ কিছু তরুণ লেখক একত্রিত হন। সমাজ, প্রেম এবং যুদ্ধোত্তর নতুন স্বদেশ চেতনায় তাঁদের লেখালেখি এগুতে থাকে। এই দশকে যাঁরা সাহিত্যচর্চা শুরু করেন তাঁরা হলেন-মনজু রহমান, রায়হান রহমান, আবদুর রাজ্জাক, শোয়ের শাহরিয়ার, জি, এম হারূন, মাহমুদ হাসান, পুটু আখতা, মোসত্মফা আলী, সজীব শামত্মা হীরু, আফরুজ জাহান, সুজন হাজারী অমিয় সাহা, খালিকুজ্জামান ইলিয়াস, ফারুক ফয়সল প্রমুখ। এদের মধ্যে অনেকে লেখালেখি থেকে সরে গেছেন, কেউ নতুন চেতনায় গ্রন্থ প্রকাশের মধ্য দিয়ে এগিয়ে গেছেন।

মনজু রহমান কবিতা চর্চায় এখনও নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। তাঁর একমাত্র কাব্যগ্রন্থ ‘জলের নূপুর’। ‘পান্ডব’ ও ‘টাঙ’ নামে কবিতা পত্রিকা সম্পাদনার সঙ্গে জড়িত আছেন। তাঁর সম্পাদনায় এই দশকে অনড়, এ্যালবাম, যুগল জানালা, নির্বাচিত কবিতা ইত্যাদি প্রকাশিত হয়। রায়হান রহমান কবিতা চর্চায় নিজেকে একাগ্রভাবে নিমগ্ন রেখেছিলেন। তাঁর কোনো কাব্যগ্রন্থ এখনও বের হয়নি। এই সময় তাঁর সম্পাদনায় অনড় এবং যুগল জানালানসহ বেশ ক’টি লিটল ম্যাগাজিন প্রকাশিত হয়। শোয়েব শাহরিয়ার তাঁর চারটি কাব্যগ্রন্থ-শোকগুচ্ছ শ্লোক গুচ্ছ (১৯৯১), মণীষার জন্য পঙ্ক্তিমালা (ডিসেঃ ০৭) প্রত্নরোধে শরীর পোড়ে, কোরতে লদীর বুকের উসুম (বগুড়ার আঞ্চলিক ভাষার কবিতা)। প্রবন্ধ গ্রন্থ-আখতারুজ্জামান ও খন্ডিত চেতনার নান্দীপাঠ। তাঁর সম্পাদনায় ‘মনোসরনী’ নামে একটি চমৎকার পত্রিকা প্রকাশ পায়। সরকার আশরাফ-সম্পাদিত ‘নিসর্গ’ পত্রিকাটির প্রকাশকও তিনি। আবদুর রাজ্জাকের একটি মাত্র কাব্যগ্রন্থ-কে গ্রহণ করে অসিত্মত্ব আমার। তাঁর সম্পাদনায় ‘শতবর্ষী’ পত্রিকাটির ৭টি সংখ্যা প্রকাশ পায়।

১২টি উপন্যাস ৪টি গল্পগ্রন্থ, ৮টি কবিতাগ্রন্থ, ৫টি ছড়াগ্রন্থ ও একটি সম্পাদিত গ্রন্থসহ প্রায় ৫০টি গ্রন্থের জনক জি. এম হারুন। উপন্যাস-নীল চোখে নীল যন্ত্রণা, যে ছিল মনে, তুমি আসবে বলে, যে ছিল অমত্মরে। গল্পগ্রন্থ-সরবে নীরবে, অধিবৃত্তে অাঁধার, স্মৃতি নির্ভর, চোখের আয়তনে। কাব্যগ্রন্থ-ভালাবাসা একদিন, মগ্ন রব মাটির প্রেমে, বিষ্টি নামে নামে না ইত্যাদি। ছড়াগ্রন্থ-হেই সামালো, কেচ্ছাকান্ড, এক বসত্মা ছড়া। তাঁর সম্পাদিত ‘স্মৃতিতে জলপড়ে টুপটাপ’ নামে বগুড়ার কবি-লেখকদের জীবনীমূলক গ্রন্থ। তিনি ‘তূণ’ নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেছেন। ‘মল্লিকা’ বগুড়া লেখক চক্র পুরস্কার পেয়েছেন। অবসর ও অাঁচল নামেও দুটো পত্রিকা সম্পাদনা করেন।

খালিকুজ্জামান ইলিয়াস, প্রয়াত কথাসাহিত্যিক আখতারুজ্জামান ইলিয়ামের অনুজ। খালিকুজ্জামান ইলিয়াস গালিভারের ভ্রমণ কাহিনী, রসোমন, মিখাইল সলোকভের প্রথম জীবনের গল্প, মিথ্যের শক্তি নামে কয়েকটি গ্রন্থ প্রণেতা। তিনি ২ খন্ডে ‘আখতারুজ্জামান ইলিয়াস সমগ্র’ সম্পাদনা করেছেন।

সুজন হাজারী কবি হিসেবেই উত্থান। তাঁর বেশ কয়েকটি কাব্যগ্রন্থ, ছড়াগ্রন্থ আছে। একজন জীবনবাদী কবি হিসেবে তিনি পরিচিত। তিনি জয়পুরহাটউচ্চারণরণ সাহিত্য গোষ্ঠীর অন্যতম সংগঠক। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ-কৃষ্ণপক্ষ সংক্রামত্ম ও ভালোবেসে রাজা হবো।

অমিয় সাহা, আযিযুল হক কলেজে পড়াশুনাকালে প্রচুর কবিতা লিখতেন। তার অনেক কবিতা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ছড়িয়ে আছে। এই কবি পরবর্তীতে আইন ব্যবসাকে পেশা হিসেবে নিয়েছিলেন। এই কবি আকস্মিকভাবে পরলোকগমন করেন।

শহীদ অধ্যাপক মোহসিন আলী দেওয়ানের জ্যেষ্ঠপুত্র ফারুক ফয়সল ছোটবেলা থেকেই পিতার অনুপ্রেরণায় লেখালেখি শুরু করেন। পেশা বেছে দেন সাংবাদিকতা। ছোটগল্প ও উপন্যাস তাঁর বিচরণ ক্ষেত্র। উপন্যাস-তার নীল চোখ এবং প্রবন্ধ-রাজধানীর রাজনীতি। দীর্ঘকাল কানাডায় প্রবাস জীবন শেষে এখন দেশে অবস্থান করছে। পুটু আখতা এ সময়ের এক তরুণ লেখক। নাটক ও ছোটগল্প লেখক। নাটক-বিভ্রাট, আমি কে, স্বয়ং ভূত ইত্যাদি তাঁর নাটক। বিশেষ রচনা ‘বগুড়ার নবাববাড়ীর, সেকাল-একাল ও একজন মুক্তিযোদ্ধার ডায়রি থেকে।

মোসত্মফা আলী, প্রবন্ধ ও নাটক লিখেছেন বেশ ক’টি। মানিক চেতনাঃ ভিন্ন প্রেক্ষিত, মানিক ও জীবনান্দ, নৈঃশব্দের কোলাহল, হেনরিক ইবসেন ও তাঁর শিল্পচেতনা, উপন্যাস-‘নীলকন্ঠ পাখি’ গল্প সংকলন-সময়ের শেষ প্রহর, কাব্যগ্রন্থ-প্রত্ন হৃদয়ের জ্বালা (যৌথ)।

বগুড়ার সাহিত্যঃ আশির দশকঃ উজ্জ্বল তারুণ্য:

আশির দশকে এক ঝাঁক উজ্জ্বল তরুণ লেখকের সাহিত্য অঙ্গনে সদম্ভ পদাপাত আমাদের আশান্বিত করলো। এই সময়ে যাঁরা এসেছেন তাঁরা হলেন-শেখ ফিরোজ আহমদ, আশীস-উর-রহমান শুভ, আজিজার রহমান তাজ, সুকুমার দাস, প্রদীপ মিত্র, পলাশ খন্দকার, ফখরুল আহসান, জয়মত্ম দেব, শিবলী মোকতাদির, বিদ্যুৎ সরকার, আব্দুল্লাহ ইকবাল, মাহমুদ হোসেন পিন্টু, পিয়াল খন্ডদার, রোহন রহমান, সৈয়দ মাহবুব, পান্না করিম, হাবীবুল্লাহ জুয়েল, শের আফগান শেরা, ড্যারিন পারভেজ, মিঠু হোসেন, খন্দকার আমিনুল করিম দুলাল, খন্দকার রেজাউল করিম হীরু, আশিক সারওয়অর, গাজী সারোয়ার, খাদিজা এলমিস, আব্দুর রউফ খান, খন্দকার বজলুর রহিম, সারোয়ার হোসেন বিকাশ, বায়েজীদ মাহবুব, আরিফ রেহমান, সুপান্থ মল্লিক, মনসুর রহমান, আব্দুর রশিদ, আব্দুর রহিম বগরা, আব্দুস সামাদ, মতিউল ইসলাম, ফেরদৌসুর রহমান রিটা, তৌফিক হাসান ময়না, ফরিদুর রহমান, রোকেয়া মাহবুব, রেজাউল করিম মুন্টু, সরকার সাইফুল মাহমুদ, নবী নাজমূল হক তালুকদার, (ন, না, হক তালুদকার), তাঁর সম্পাদিত শিশু-কিশোর পত্রিকা ‘ভোর হলো দোর খোল’।

প্রদীপ মিত্রের প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ-পতাকার অহংকার (১৯৯৯), দেখি সেই দগ্ধগ্রাম (২০০১), তার হাতে দীর্ঘ এক হাত (২০০২), আকাশের সুবিসত্মার (২০০৩), অগ্নিত অঙ্গার (২০০৪) ও জনতার সিংহ নাম (২০০৬)।

শেখ ফিরোজ আহমদের জন্ম চাঁদপুরে কিন্তু অধ্যাপক পিতার বদলীসূত্রে তিনি আশির দশকে বগুড়াতে স্থায়ীভাবে অবস্থানের সময়ে বগুড়ার সাহিত্য জগতের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়েন। ষাট ও সত্তর দশকের লেখকদের সঙ্গে তিনি সু-সম্পক গড়ে তুলতে সমর্থ হন। ছাত্রাবস্থাতেই প্রচুর লেখালেখি এবং পত্রিকা প্রকাশ শুরু করেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালীন তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘পাতকীর ছায়া’ প্রকাশিত হয়। এছাড়া তিনি রক্তারুণ, চত্বর, ঈক্ষণ নামে লিটন ম্যাগাজিনের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। ‘বগুড়া লেখক চক্র’ প্রতিষ্ঠা ও এই সংগঠনকে এগিয়ে নেওয়ার পিছনে শেখ ফিরোজ আহমদের অবদান সবচেয়ে বেশি।

সাজাহান সাকিদার একজন প্রতিশ্রুতিশীল গল্পকার ও ভিন্নমাত্রার ঔপন্যাসিক। তাঁর প্রকাশিত বই-উপন্যাসঃ শ্মশানযাত্রীর নরক উল্লাস-১৯৯৫, বত্রিশ বিঘা ধানী জমি-২০০০, স্বপ্ন বিক্রেতাদের গল্প-২০০৭, আবারও জেগে উঠবে এই ডুবোচর-২০০৭, গল্পগ্রন্থঃ পাতালে এক বর্গ-২০০৪, উল্টোরথ-২০০৫, বলি ও অন্যান্য তীরের সমীকরণ-২০০৮।

ফখরুল আহসান এক তরুণ কবিতাকর্মী। কোনো কবিতাগ্রন্থ বেরোয়নি, তবে প্রকাশ অপেক্ষায় আছে। সম্পাদনা করেছেন ‘মর্মর’ এবং ‘পথ’ কবিতা পত্রিকা। পান্না করিমের একমাত্র কাব্যগ্রন্থঃ আকরিক সুখ-দুঃখের জার্নাল। জয়মত্ম দেব কবিতায় নিবেদিত প্রাণ। তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ-‘করতোয়ার জল ছুঁয়ে বেড়ে ওঠে বেহুলার ছেলে’। ‘দ্যুতি’ নমে একটি পত্রিকা তাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত হচ্ছে।

পিয়াল খন্দকার ছোটগল্প এবং উপন্যাসই বেশি লিখেছেন। তাঁর ছয়টি উপন্যাস-শুধু তোমাকেই ভালবাসি, প্রেম তুমি তোমাকে, ভালবাসার তিন রং, ফিরে এসো হৃদয়ে আমার, ধন্যবাদ, হে ভালবাসা, শ্রাবণে তোমাকে চাই। গল্পগ্রন্থ-প্রেম ও স্বপ্নের পাখিরা।

আব্দুল্লাহ ইকবালের একটি কাব্যগ্রন্থ-গোল গোল রাত। সম্পাদনা করেছেন- মাইলস্টোন, অতিক্রম, নোয়াজার্ক। মাহমুদ হোসেন পিন্টুর কাব্যগ্রন্থ-কেউ নেয় না গোলাপ, এসো একাকীত্বের অরণ্যে। উপন্যাস-কষ্ট বিলা। সম্প্রতি একটি প্রবন্ধের বই বেরিয়েছে।

আজিজার রহমান তাজ আশির দশকে বগুড়ার সাহিত্য জগতে যার সরব পদচারণা। লেখালেখির বিষয় ‘আশয় গদ্য, কবিতা, ছড়া। এসব মিলিয়ে তার প্রকাশনা গ্রন্থের সংখ্যা সাত। মল্লিাকা সাহিত্য পত্রিকা ২১ বছর ধরে প্রকাশনা অব্যাহত রেখেছেন। মল্লিকা’র প্রকাশনা সংখ্যা ৩৬টি। ছড়ায় তার হাত খোলে চমৎকার। ‘জননেত্রীর প্রতিকৃতি’ ও ‘আমাদের হুমায়ুন আহমেদ’ নাম দু’টি গ্রন্থ সম্পাদনা করেছেন। তাঁর কবিতার বই-ইস্যু সংকট, কবিতা কার্ডঃ ‘ভালোবাসা সোনার হরিণ’, ‘ভালোবাসা বুকের বকুল’। তাঁর কাব্যগ্রন্থ অরণ্যের ভেতরে পা, বিষাক্ত ফুলের মধু, জননী আমার অহঙ্কার। গল্প গ্রন্থঃ ঐকতান, গল্পমঞ্জরী।

অকালপ্রয়াত খন্দকার আমিনুল করিম দুলাল। বগুড়া কারূপল্লীর প্রতিষ্ঠাতা। মূলত কারুশিল্পী ও শিল্পকর্মের ফাঁকে ফাঁকে লিখতেন ছড়া, নাটক, কবিতা। অতৃপ্ত অন্ধকার, অথচ চলছে, স্বয়ং ভূত, তাঁর রচিত মঞ্চসফল নাটক। বগুড়াসহ বাংলাদেশের অনেক লেখকের প্রচ্ছদ তিনি করেছেন। শিল্পকর্মের জন্য তিনি ভারতের অশোকা ফেলোশিপ লাভ করেন। খাদিজা এলমিস। তাঁর একটি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে-এই ফুলবন, অন্য জনম। খন্দকার বজলুর রহিম কবিতা, গল্প, উপন্যাস রচনায় সিদ্ধহসত্ম। শিশু সাহিত্যে তাঁর বেশ দখল আছে। কাব্যগ্রন্থ-হৃদয়ের কাছাকছি, আজো ভালবাসি গল্পগ্রন্থ, প্রিয় বান্ধবী। উপন্যাস-হৃদয়ের স্পন্দন, ইডিয়েট, ইয়েস ম্যাডাম, একটু ছুঁয়ে দেখি। ছোটদের বই-কুমারীরের রাজা, ভূতের বাড়ি।

সুকামার দাস সাহিত্য নিবেদিত প্রাণ মানুষ। শয়নে-স্বপনে-জাগরণে লেখা তার লেখা। আশির দশকে তার লেখা নাটক মঞ্চস্থ হত শহরতলী ও শহরের বিভিন্ন অঞ্চলে। তার দর্শক নন্দিত নাটক-‘আবার ফিরে গেলাম’ কে বড় চোর, জরিনার পেটে কার পোলা, কার কান্না, বিচারের বাণী ইত্যাদি মঞ্চ সফল নাটক। তার নাটক ‘আবার ফিরে গেলাম, ৩৬ বার মঞ্চস্থ হয়। তার সম্পাদিত পত্রিকা ‘রক্তিম সূর্য’ ১১ সংখ্যা প্রকাশিত হয়। তার কবিতা গ্রন্থ ‘বুভুক্ষ মানুষের মিছিল’ প্রকাশের অপেক্ষায়। এ ছাড়াও জনকন্ঠ ও ভোরের কাজগে তার সাম্প্রতিক রাজনীতি ও সমাজের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান আলোকে লেখা প্রায়শঃ প্রকাশিত হয়ে থাকে। তিনি প্রতিবাদী কবিতা লেখায় সিদ্ধহসত্ম।

গাজী সারোয়ার কবিতা, গল্প রচনা করেন। ‘বৈশাখী মেলা’ নামে একটি কাব্য সংকলন সম্পাদন করেছেন। তিনি বগুড়া লেখক সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। ‘লেখক’ নামে পত্রিকা তাঁর সম্পাদনায় প্রকাশিত হচ্ছে। আব্দুস সামাদ মূলত ঔপন্যাসিক। তাঁন তিনটি উপন্যাস-মেঘে ঢাকা শশী, মেঘে ঢাকা রবি এবং প্রকাশকের মৃত্যু। তাঁর ইংরেজিতে একটি কাব্যপুসিত্মকা প্রকাশ পেয়েছে-‘টু পোয়েমস টু বিল ক্লিনটন’। হাবীবুল্লাহ জয়েল-এর কাব্যগ্রন্থ-এঞ্জেলিক ভয়েস, মহাপ্রলয়, ফতোয়া, রক্তাক্ত ইতিহাস বগুড়ার নওয়াব বাড়ির ইতিহাস, হযরত শাহ ফতেহ আলী (রঃ), জিয়াউর রহমানঃ জীবন থেকে নেওয়া। ফেরদৌসুর রহমান রিটার একটি মাত্র কবিতাগ্রন্থ-‘লাল চিঠি’। ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দে তাঁর আকস্মিক তিরোধান কাব্যাঙ্গনের জন্য সত্যিই শোকাবহ ঘটনা। আব্দুর রশীদ। তাঁর তিনটি কাব্যগ্রন্থ-রূপসী প্রামত্মর, আকাশ গ্রামের পাখি, বর্ষার দেহে কাব্যের আগুন। তিনি পুন্ড্রতোয়া’ নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেছেন। তৌফিক হাসান ময়না মূলত সংগঠক ও নাট্যকার। তিনি বগুড়া থিয়েটারের প্রধান সংগঠক। অভিনেতা, নাট্যকার ও নাট্য নির্দেশক হিসেবে তিনি সমধিক পরিচিত। তার নাটক-যে গল্পের শেষ নেই, যুদ্ধ স্বাধীনতা, সোনাভানের পালা, হল্লাবোল, স্বাধীনতা কাঁদে আজো। তাঁর রচিত নাটক টেলিভিশন ও বেতারে প্রচারিত হয়েছে। আশির দশকে অন্যান্যরা এখনও বই প্রকাশ করেননি। তাঁরা লিখছেন, কেউ কেউ লেখার জগৎ থেকে দূরে সরে গেছেন। এসময় শেরপুর সাহিত্য চক্রের মাধ্যমে স্থানীয়ভাবে বেশ কিছু লেখকের উত্থান ঘটে। এদের মধ্যে আজিজুল হক, সুব্রত ঠাকুর, দীপংকর চক্রবর্তী, কাজল দত্ত, সদানন্দ লাহিড়ী, আব্দুর রউফ, গৌতম সরকার প্রমুখ।

বগুড়ার সাহিত্যঃ নববই ও শূন্য দশকঃ নব যাত্রাপথ

নববই-দশক এই দশকেই সাহিত্য পথযাত্রায় এক নতুন চেতনা আমাদের বুদ্ধিবিভায় তুলেছে ঝড়ো হাওয়ার মাতম। যে প্রক্রিয়ায় আধুনিক সাহিত্যতত্ত্ব পূর্ণ জঙ্গমতা নিয়ে অগ্রসর ছিল, সেখানে বিংশ শতাব্দীর শেষ লগ্নে এই নতুন সাহিত্যতত্ত্ব এযাবতকালের ধ্যান-ধারণায় অভিঘাত সৃষ্টি করলো, যার সূচনা ষাট-সত্তর দশকে। এই নতুন সাহিত্যতত্ত্বে অভিমুখীন যাত্রায় ভাষাতত্ত্ব, সাহিত্য, দর্শন, বিজ্ঞান, নৃতত্ত্ব, মনোসমীক্ষা, চিকিৎসা বিজ্ঞান, সমাজতত্ত্ব, নারীবাদী তত্ত্ব, শৈলীবিজ্ঞান একাকার হতে চায়-এসবেরই একটি উল্লেখযোগ্য নামকরণ ‘উত্তর আধুনিকতা’ যা বলা বার্থের সাহিত্য সমালোচনা, আলথুসারের মার্কসের রচনাপাঠ, লেভি স্ট্রুসের নৃতত্ত্ব, মিখাইল বাখতিনের উপন্যাসতত্ত্ব, জাঁক দেরিদার বিনির্মাণের শীর্ষচূড়ায় আরোহণ করেছে। এসবেরই ধারাবাহিকতা রাজধানী ঢাকাসহ সব জেলাতেই উত্তর আধুনিকতার তথ্য তালাশ চলছে কবিতায়, গল্পে, উপন্যাসে, নাটকে। বগুড়াতে বেশ কিছু লেখা উত্তর আধুনিকতার তত্ত্বে পুষ্ট হয়ে সে-ধারণা থেকে লিখছেন, কেউ কেউ প্রথাগত সাহিত্যে আশ্রয় নিয়েছেন। নববই দশকের কম্পমান তরুণ লেখকদের মধ্যে শামীম কবীর, আপলু, জামরুজ্জামান মাসুম, মামুন রশীদ, অমিত রেজা চৌধুরী, আবু রায়হান চঞ্চল, লিটন সাহা, টটুল রহমান, নীলুফার নাসির নীলা, শাহন-ই-জেসমিন ডরোথী, মতলেবুর রহমান, সায়রা হেলাল, এস, এম, শাজাহান, মহল আরা, হিমেল সরকার, সাইফুল ইসলাম, সিরাজুল হক মন্টু, মোহসিম বিল্লাহ সবুজ, সেলিম রেজা সেন্টু, স্বাতী রহমান, মুমিনুর স্বপন, অরবিন্দ দাস, নূরুন্নবী খান জুয়েল, সাহাব উদ্দিন হিজল, কামরুল নাহার, রায়হান রানা, কাজল আহমদে খৈয়াম কাদের, সাজ্জাদ বিপ্লব, রহমান তাওহীদ প্রমুখ। এদের মধ্যে অনেকেই কমবেশি লেখার জগতে বিচরণ করছেন। খৈয়াম কাদেরের কাব্যগ্রন্থ ‘পারদ বিশ্বাস’ প্রবন্ধ, কবিতার এষন-ভূষন। তার সম্পাদিত পেশায় ইংরেজি সাহিত্যের শিক্ষক।

তরুণ কবি শামী কবীর নীরিক্ষামূলক কবিতা রচনায় পারদর্শী ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পর প্রকাশিত হয়েছে ‘শামীম কবীর কবিতা সমগ্র’। আপলু লিখেছেন একজন, তবুও তুমি আমার, সেই তুমি কেন এত অচেনা হলে, ও একটি যৌথ কবিতার বই’ সেই তুমি এবং একটি কবিতার কার্ড ‘তোমাকে স্পর্শ করবো বলে। কামরুজ্জামান মাসুমের যুগল সংলাপ, নীলুফার নাসির নীলার গল্পগ্রন্থ-আপন বলয়, মহল আরার উপন্যাস-সুখের সন্ধানে, স্বাতী রহমানের গ্রন্থ-বিউগিল বনভূমি, গল্পমঞ্জুরী এ সময়ের উল্লেখযোগ্য রচনা। অন্যরা এখনো লিখে যাচ্ছেন, সম্ভাবনাময় প্রতিশ্রুতিশীল লেখকগণ আগামী দিনে বগুড়ার সাহিত্যাঙ্গনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবেন এ আশাবাদ ব্যক্ত করা যায়। নববই দশক সম্পর্কে এখনই চরম মমত্মব্য করা উচিত নয় বলে মনে করি। তবে সাহিত্যের একটি স্বতন্ত্র ক্ষেত্র তৈরিতে তারা সচেষ্ট আছেন। তিরিশের পরে ষাটে যেমন ছিল চমকে দেবার প্রবণতা, সাহিত্যের পরীক্ষা নিরীক্ষায় এগিয়ে যাওয়ার উদ্দাম আকাঙ্ক্ষা, অনুরূপ সত্তর আশি পেরিয়ে নববই-শূন্য দশক আমাদের সাহিত্যের বিলোড়নের দশক বলে চিহ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

শতাব্দীর প্রথম দশক হিসেবে ইতোমধ্যেই পেরিয়ে গেছে সাতটি বছর। বগুড়ার তরুণরাও তাদের ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চলেছে। এসময়ে যারা উজ্জ্বল পদাচারণায় মুখর কুরে তুলেছেন সাহিত্যের অঙ্গন তাঁরা হলেন-অনমত্ম সুজন, এমরান কবির, মাহমুদ শাওন, ইসলাম রফিক, তালাশ তালুকদার, সরফরাজ স্বয়ম, প্রামিত্মক অরণ্য, কামরুন নাহার-এর প্রকাশিত গ্রন্থ ‘খোলা আকাশ (২০০৩), জল রঙের স্বপ্ন (২০০৩) দুটি উপন্যাস। আরো লিখছেন হান্নান সৈকত, শাহাজ শাহী, অজমত্মা শ্রাবণী, রুবী রুমানা, ইশান সামী, বিধান সাহা, আমিনুর রহমান আকাশ, সৌম্য সজীব অনিন্দ আউয়াল, ফাল্গুনী রহমান সেলিনা শিউলি, মিতানূর, তাসলিমা পারভীন বিউটি, সাকিল আহাম্মেদ ফৌজিয়া। মুহম্মদ আব্দুর রশিদ তাঁর তিনটি কাব্যগ্রন্থ ঝরাপাতার কান্না (২০০৫), নদীর ঘাট দেখেছি (২০০৬), স্বপ্নচারী (২০০৬)। সায়রা হেলাল-এর উপন্যাস-হৃদয় জুড়ে তুমি, কষ্টে ভেজা উপহার, অগ্নিক্ষরা বসমত্মঃ সাহাব উদ্দিন হিজল-এর উপন্যাস-মেঘ ভাঙ্গা রোদ, নয়না। গল্পগ্রন্থ-‘নতুন পথে’, ছোটদের গল্প-ইচ্ছে পুরণ। কাজী রাফি-কাব্যগ্রন্থ সুতীক্ষা’০৩, ঝিঁ ঝিঁ ডাকা এক রাতে’০৬, গল্পগ্রন্থঃ রূপডাঙ্গার সন্ধানে’০৭, উপন্যাসঃ নিসর্গে নিরুদ্ধ’০৭ প্রকাশিত।

শূন্য দশকের তরুণেরা পূর্ববর্তী দশকের অভিজ্ঞতা ও অর্জন ধারণ করে এবং বিশেষ প্রস্ত্ততি নিয়েই এসেছে। তাঁদের চেতনা ও রুচির প্রকাশ সে-কথাই বলে। এ দশকের তরুণেরা কবিতায়, গল্পে, প্রবন্ধে, গদ্যে, সম্পাদনায় অনেক বেশি পরিশীলিত। ইতোমধ্যেই বেরিয়েছে মাহমুদ শাওনের ছড়াগ্রন্থ ‘টাপুর টুপুর মেঘের দুপুর’। তিনি ‘সুতরাং’ নামের একটি লিটল ম্যাগাজিনও সম্পাদনা করেন। ইসলাম রফিকের কাব্যগ্রন্থ ‘বিজন দ্বীপে বিশ্বাসী বালি হাঁস। সে দোঅাঁশ নামে একটি ম্যাগানিজ সম্পাদনা করেন ‘মিতানূরের কাব্যগ্রন্থঃ পাথর হৃদয় (২০০৩), শ্রাবণের অশ্রু বিন্দু, নির্বাচিত কবিতা, দুঃখগুলো তো দূরেই ছিল, গল্পগ্রন্থঃ সুখ দুঃখ, পাথরের চোখে জল (২০০৫), প্রবন্ধ গ্রন্থঃ আকাশে অনেক মেঘ (২০০৪) ইত্যাদি। তাসলিমা পারভীন বিউটি’র কাব্যগ্রন্থঃ অন্য রকম প্রেম, (২০০৭), সাকিল আহাম্মেদের-একটু কাছে একটু দূরে (২০০৭), ফৌজিয়ার উপন্যাস-এক ফোঁটা ভালবাসার জন্য, পেলাম অবশেষে। আরো কিছু তরুণের গ্রন্থ বইমেলায় প্রকাশিত হবে বলে জানিয়েছেন এ দশকের তরুণেরা। তারা হলেন-অনমত্ম সুজন, এমরান কবির, মাহমুদ শাওন। অনমত্ম সুজনের সম্পাদনায় ‘সুবিল’ এবং এমরান কবিরের সম্পাদনায় বের হয় ‘থার্ডম্যাগ’ যা ভিন্নমাত্রিক ছোট কাগজ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে।

বগুড়ার সঙ্গীত জগৎ:

১। বৈদ্যনাথ দত্ত ৫০ দশক

২। শিবেন কুন্ডু ’’

৩। শৈলেন পোদ্দার ২৭/৩ সত্মব্দ আলাউদ্দিন সরকার (৫০ দশক)

৪। তারাপদ ব্যানার্জী ’’

৫। অনিল বিশ্বাস ৬০ দশক

৬। রামগোপাল মহন্ত ’’

৭। এমদাদুল হক ’’

৮। মোস্তফা নুরউল মোহসিন ’’

৯। জাহানারা লাইজু ’’

১০। হোসনে আরা ’’

১১। আঞ্জুমান আরা বেগম ’’

১২। জিনাত রেহানা ’’

১৩। সাইফুল ইসলাম ’’

১৪। শামন্ত সেনগুপ্ত ’’

১৫। শামসুন্নাহার ’’

১৬। নিজামূল হক (নৃত্য) ’’

১৭। অর্জুন কুমার মোহমন্ত ’’ (বেহালা বাদক)

১৮। মমতাজ উদ্দিন ’’ (বাঁশী)

১৯। সারদাকিঙ্কা মজুমদার ’’ (তবলা)

২০। রফিকুল আলম দুলু ’’ (বাঁশী)

২১। আজমল হুদা মিঠু ’’

২২। কামরুল হুদা টুটু ’’

২৩। খন্দকার ফারুক আহমদ ’’

২৪। শওকত হায়াত খান ’’

২৫। অনুপ ভট্টাচার্য ’’

২৬। মৃণাল কান্তি সাহা ’’

২৭। ওস্তাদ খাজা গোলাম মইনুদ্দিন ৭০ দশক

২৮। সুইটি খান ’’

২৯। ছায়া কুন্ডু ’’

৩০। স্বপন কুন্ডু ’’

৩১। গুরুদাস পোদ্দার ’’

৩২। তৌফিকুল আলম টিপু ’’

৩৩। শেখ নুরুল আলম লাল ’’

৩৪। হেলাল উদ্দিন ’’

৩৫। মুস্তারি জাহান ’’

৩৬। নুরুল ইসলাম ৮০ দশক

৩৭। শাহানাজ পারভীন ’’

৩৮। এনামূল হক ’’

৩৯। স্বপন সিংহ ’’

৪০। আব্দুল আউয়াল ৯০ দশক

৪১। জিনিয়া জাফরিন লুইপা ’’

বগুড়ার শিল্পীবৃন্দ (চিত্রশিল্পী):

কাজী আব্দুর রউফ, আমিনুর রহমান, সুলতানুল ইসলাম, জাহিদ হোসেন, নিয়ামুল আরিফ, স.ম. বক্তিয়ার, মনিরুল ইসলাম নান্টু, হেলেনা খানম ইরানী, আমিনুল করিম দুলাল, মযহারুল করিম নীরু, এমদাদুল হক (ঘেরা বকুল), প্রভাত সরকার কাঞ্চু।

ছোট কাগজগুলো হচ্ছে-বিপ্রতীক, দ্রষ্টব্য, ঈক্ষণ, পদধ্বনি, স্বরক্ষেপ, অবেলা, অপরাহ্ন, প্রাচী, অধোরেখ, নতুন দিন, রক্তশব্দ, অকেস্ট্রা, অনড়, এ্যালবান, শব্দাবলী, অনুকাল, সারাক্ষণ, আত্মপ্রকাশ, যুগল জানালা, ঝুলন, চিত্রক, সোমবার, শতবর্ষী, রক্তারুণ, অমত্মরঙ্গ, বিতর্ক, চেতনা, সিস্ফনী এবং প্রেম, চোখ, চিরকুট, শাদাশার্ট, যন্ত্রণা, নানান, একতারা, সন্ধ্যাতারা, শরনী সূর্যতোরণ স্ফুলিঙ্গ, শাশ্বাত বাংলা, প্রেক্ষিত, দ্যুতি, তূণ, পথ, ভোর হলো দোর খোল, মল্লিকা, কবি, তুমি, রক্তিম, সূর্য, নিসর্গ, স্পর্ধা, তর্জন, সচেতন, সাধ, সুতরাং, অবয়ব, প্রতীতী, উদ্যান, পরমা, জলছাপ, দীঘি, লেখক, কাকতাড়ুয়া, অতিক্রম, নোয়াজার্ক, ডামি, এডিশন, প্রতিকাগজ, থার্ডম্যাগ, সুবিল, পরিধি, দ্বিবাচ্য, দেউড়ি, পুন্ড্র, পুন্ড্রতোয়া, বাতিঘর, খোলাদশক, ধনুক, দোঅাঁশ। এছাড়াও বগুড়া থেকে প্রকাশিত দৈনিকগুলোর সাহিত্যপাতা সাহিত্যক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।